আজ বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ।   ২২ মে ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

কিছু নির্দেশনা ছিলো, উদাসিনতা লক্ষ করেছি: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী 

-Advertisement-

আরো খবর

- Advertisement -
- Advertisement -

প্রতিনিধি , মুন্সীগঞ্জ :
নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, পদ্মা সেতুর পিলারের সাথে ফেরির ধাক্কা লাগার ঘটনায় আমাদের সংস্থা থেকে ব্যাবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। কিছু নির্দেশনা ছিলো এ ক্ষেত্রে আমরা উদাসিনতা লক্ষ করেছি। এগুলো কেন হচ্ছে সে বিষয় নিয়ে আজ ( শুক্রবার ) উচ্চ পর্যায়ে একটি সভা করবো। সে সভা থেকে আমাদের পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে। মাঝিকান্দি ঘাট আমরা আজকে পরির্দশন করেছি। পদ্মা সেতু পুরোপুরি ভাবে তৈরী হওয়ার পর বাংলাবাজার যে ঘাটটি আছে, সে ঘাটটি আমরা আর ব্যাবহার করতে পারছিনা। সে হিসেবে মাঝিকান্দি ঘাটটি আমরা আবার ব্যবহার করতে চাই। একারণে মাঝিকান্দি ঘাটটি আমরা প্রাথমিক পরির্দশন করেছি। শুত্রবার ১৩ আগস্ট বার বার পদ্মা সেতুর পিলাওে ফেরির ধাক্কা লাগা স্থান ও নৌরুট পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
এ সময়ে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রীর সাথে ছিলেন বিআইডব্লিউটিএর চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেক, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান সৈয়দ তাজুল ইসলাম, মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক কাজী নাহীদ রসুল, পদ্মা সেতুর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ৯৯ কম্পোজিট বিগ্রেডের কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল কামরুল হাসান, বিআইডব্লিউটিসির পরিচালক বানিজ্য আসিকুজ্জামান প্রমুখ।
এদিকে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী আসার পূর্বেই মুন্সীগঞ্জের লৌহজং এলাকায় পদ্মা সেতুর ১০ নম্বর পিলারের সঙ্গে আবারও ফেরির ধাক্কা লেগেছে। শুক্রবার ১৩ আগস্ট সকাল পৌনে ৭ টার দিকে ১০ নম্বর পিলারে আঘাত হানে ফেরি কাকলি। বাংলাবাজার ঘাট থেকে শিমুলিয়া ঘাটে আসার পথে ধাক্কার ঘটনাটি ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন কাকলির চালক মো. বাদল হোসেন। বাদল হোসেন জানান, ফেরিটি পদ্মা সেতুর ১১-১২ পিলারের মধ্য দিয়ে আসার কথা ছিল। কিন্তু নদীর প্রচণ্ড স্রোত ও বাতাসের কারণে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পদ্মা সেতুর ১০ নম্বর পিলারে ধাক্কা লাগে। এতে ফেরির একপাশে ফাটল ধরে। তবে ফাটল পানির স্তরের উপরে থাকায় ফেরিতে পানি ওঠেনি। পদ্মা সেতুর পিলারেরও কোন ক্ষতি হয়নি। ধাক্কা লাগার পর ফেরিটি নিয়ে নিরাপদে শিমুলিয়া ঘাটে আসতে পেরেছি। এ ঘটনায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তিনি আরও জানান, ফেরিটির কারিগরি সমস্যা ছিলো। সম্প্রতি বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও ব্যবস্থা নেয়নি বিআইডব্লিউটিএর শিমুলিয়াঘাট কর্তৃপক্ষ।
উল্লেখ্য, গত সোমবার ০৯ আগস্ট সন্ধ্যায় ১০ নম্বর পিলারে আঘাত হানে ফেরি বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর। এ সময় প্রায় ২০ জন যাত্রী আহত হয়। গুরুতর আহত একজনকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর আগে গত ২৩ জুলাই পদ্মা সেতুর ৭ নম্বর পিলারের সঙ্গে ধাক্কা খায় রো রো ফেরি শাহ জালাল। এতেও প্রায় ২০ জন যাত্রী আহত হন। ফেরিটি মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট থেকে রওনা দিয়ে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে যাচ্ছিল।

আলোকিত প্রতিদিন/ ১৩ আগস্ট, ২০২১/ দ ম দ

- Advertisement -
- Advertisement -