আজ রবিবার, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ ।   ২১ এপ্রিল ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

আমার এ দুটি চোখ পাথর তো নয়,তবু কেন ক্ষয়ে ক্ষয়ে যায়-এর গীতিকার জাহিদুল হক মারা গেছেন

-Advertisement-

আরো খবর

- Advertisement -
- Advertisement -

বিনোদন ডেস্ক:

‘আমার এ দুটি চোখ পাথর তো নয়, তবু কেন ক্ষয়ে ক্ষয়ে যায়’– জনপ্রিয় এই গানের গীতিকার ও কবি জাহিদুল হক আর নেই। তিনি আজ দুপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।  তাঁর মৃত্যুর খবর গণমাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন পরিবারের সদস্যরা। তাঁরা জানান, ১৫ দিন আগে তিনি ব্রেন স্ট্রোক করেছিলেন। এর পর থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি ছিলেন। গীতিকবি সংঘের আজীবন সদস্য ছিলেন জাহিদুল হক। তাঁর প্রয়াণে সংগঠনটি থেকে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়েছে। জাহিদুল হক গল্পকার, ঔপন্যাসিক ও গীতিকার হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তাঁর জন্ম ১৯৪৯ সালের ১১ আগস্ট ভারতের আসামের বদরপুর রেলওয়ে হাসপাতালে চিকিৎসক পিতার কর্মস্থলে। পৈতৃক নিবাস কুমিল্লা জেলার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার গুণবতী ইউনিয়নের আকদিয়া গ্রামের ভূঞাবাড়ি। ১৯৬৩ সালে জাহিদুল হক চট্টগ্রামের নগেন্দ্রচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ম্যাট্রিক পাস করেন। ১৯৬৭ সালে ফেনী সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬৯ সালে দ্বিতীয় বিভাগে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি সাহিত্যে এমএ ভর্তি হন। জাহিদুল হক বাংলা একাডেমির একজন ফেলো। তিনি রেডিও ডয়েচে ভেলের সিনিয়র এডিটর ও ব্রডকাস্টার হিসেবে ১৯৮৯ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত কাজ করেছেন। দৈনিক সংবাদের সিনিয়র সহকারী সম্পাদক হিসেবে চাকরি করেছেন। অন্যদিকে বাংলাদেশ বেতারের উপমহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন এই কবি ও গীতিকার। জাহিদুল হক বাংলাদেশ বেতার থেকে প্রকাশিত ‘বেতার বাংলা’ পত্রিকার সম্পাদনার দায়িত্বও পালন করেছেন। তিনি টানা চার বছর বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের সদস্য ছিলেন। জাহিদুল হকের কবিতা, উপন্যাস, ছোটগল্প গান মিলিয়ে প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ১৮টিরও বেশি। তাঁর প্রথম কবিতার বই প্রকাশ হয় ১৯৮২ সালে ‘পকেট ভর্তি মেঘ’ শিরোনামে। তাঁর উল্লেখযোগ্য প্রকাশিত গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে ‘পকেট ভর্তি মেঘ’, ‘তোমার হোমার’, ‘নীল দূতাবাস’, ‘সেই নিঃশ্বাসগুচ্ছ’, ‘পারীগুচ্ছ ও অন্যান্য কবিতা’, ‘এই ট্রেনটির নাম গার্সিয়া লোরকা’, ‘এ উৎসবে আমি একা’ ইত্যাদি। জাহিদুল হকের লেখা উল্লেখযোগ্য গানের মধ্যে রয়েছে- ‘আমার এ দুটি চোখ, ‘কথা দাও, কথাগুলো ফেরত দেবে না’, ‘স্বাধীনতা তুমি আমার বাড়িতে এসো’, ‘স্বপ্ন আমার কাজল পুকুর তুমি’, ‘যে দেশে বাতাস স্মৃতির স্পর্শে ভারী’, ‘কতো দিন পরে দেখা, ভালো আছো তো’, ‘আমি তোমার ভালোবাসার খাঁচায় ধরা দেবো’ ইত্যাদি। জাহিদুল হকের লেখা প্রকাশিত গ্রন্থগুলো হলো- পকেট ভর্তি মেঘ (কবিতা), তোমার হোমার (কবিতা), নীল দূতাবাস (কবিতা), সেই নিঃশ্বাসগুচ্ছ (কবিতা), পারীগুচ্ছ ও অন্যান্য কবিতা (কবিতা), এই ট্রেনটির নাম গার্সিয়া লোরকা (কবিতা), এ উৎসবে আমি একা (কবিতা), ব্যালকনিগুলো (গল্প), আমার ভালোবাসার অটম (গল্প), তোমার না আসার বার্ষিকী (উপন্যাস) ও আমজাদ আলির মেঘবাড়ি (উপন্যাস)। ২০০০ সালে তিনি জসীমউদ্দিন সাহিত্য পুরস্কার, ২০০২ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার এবং ২০১৭ সালে লিরিক কবিতার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগ থেকে বিশেষ সম্মাননা পেয়েছিলেন এই গুণী কবি। খ্যাতিমান এই কবি ও গীতিকারের মৃত্যুতে দেশের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

আলোকিত প্রতিদিন/ ১৫ জানুয়ারি ২৪/মওম

- Advertisement -
- Advertisement -