10:21 am |আজ শুক্রবার, ৪ঠা ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ১৯শে আগস্ট ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২০শে মহর্‌রম ১৪৪৪ হিজরি

সংবাদ শিরোনাম:
খানসামায় বেগুন চাষে সফল স্থানীয় কৃষকরা শিবালয়ে পদ্মার ভাঙ্গন রোধে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে পলাশবাড়ীতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত বনবিভাগ ও প্রশাসনের যৌথ   অভিযানে ৪ টি  অবৈধ করাতকল উচ্ছেদ শাজাহানপুরে কিশোর গ্যাংয়ের বিরুদ্ধে থানা পুলিশের অভিযান অব্যহত বঙ্গবন্ধু সৃষ্টিকর্তা ছাড়া কারো কাছে মাথা নত করেননি: লিটন আনোয়ারায় এক ভবঘুরের দায়ের কোপে সুনীল চন্দ্র নাথ খুন হয়েছেন  সাবেক যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রীর স্ত্রী বেগম নিহার চৌধুরী সবাইকে কাঁদিয়ে চলে গেলেন চট্টগ্রামের পটিয়ায় মাকে হত্যা করা নিকৃষ্ট পুত্র আটক ধামরাই-এ পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণ, ধর্ষক আরফান আলী আটক




টেকনাফের ইউএনও’র ভাষা মাস্তানের চেয়েও খারাপ: হাইকোর্ট

টেকনাফের ইউএনও’র ভাষা মাস্তানের চেয়েও খারাপ: হাইকোর্ট




আলোকিত ডেক্স

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) কায়সার খসরুর ভাষা মাস্তানের চেয়েও খারাপ বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে সাংবাদিককে ইউএনও’র অকথ্য ভাষায় গালাগালি দুঃখজনক ও অগ্রহণযোগ্য বলে জানান সর্বোচ্চ আদালত। হাইকোর্ট বলেছেন, একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তির মুখে এমন অশ্লীল শব্দ কাম্য নয়।

এরপর ইউএনও’র গালিগালাজের ঘটনায় কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। কক্সবাজারের জেলা প্রশাসকের (ডিসি) সঙ্গে কথা বলে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিককে এ তথ্য আদালতকে জানাতে বলা হয়েছে তিনি জানান।

রোববার (২৪ জুলাই) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এমন মন্তব্য করেন।

আদালতে শুনানিতে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। তার সঙ্গে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলী।

আর সাংবাদিককে গালাগালি সংক্রান্ত পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনটি আদালতের নজরে আনেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।

তিনি জানান, হাইকোর্ট বলেছেন- একজন ‘রং হেডেড’ মানুষ শুধু এরকম গালিগালাজ করতে পারে। ইউএনও যে ভাষা ব্যবহার করেছেন তা মাস্তানের ভাষার চেয়েও  অতিরিক্ত খারাপ।

বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারক বলেন, সাংবাদিকরা সমাজের দর্পণ। তারা রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। তারাও যদি কোনো অপরাধ করেন, তাহলে সে বিষয়ে প্রেস কাউন্সিল আছে। সেখানে অভিযোগ দেওয়ার সুযোগ রয়েছে,আইন আছে। এভাবে গালিগালাজ তো কেউ করতে পারেন না তিনি।

এর আগে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর নিয়ে খবর প্রকাশের জেরে কক্সবাজারের সাংবাদিক সাইদুল ফরহাদকে দাপ্তরিক মুঠোফোন নম্বর থেকে কল করেন ইউএনও কায়সার। এসময় তিনি খবর প্রকাশের কারণ জানতে চেয়ে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকেন। ঘটনাটি ২১ জুলাই রাত পৌনে ১০টার। গালিগালাজের একটি অডিও রেকর্ড ফাঁস হয়েছে।

ওই অডিওতে ইউএনওকে বলতে শোনা যায়, ‘তুই কত বড় সাংবাদিক হইছস? তুই তো টেকনাফের প্রতিনিধি না।

ওই সময় সাইদুল ফরহাদ নিজেকে জেলা প্রতিনিধি পরিচয় দিলে ইউএনও তাকে বলেন, ‘কিসের জেলা প্রতিনিধি? সেদিন তোর বাবা যিনি আসছিল, যে তোর পরিচয় দিছিল, সেই জন্য তোর ফোন আমি ধরেছিলাম। তুই যা লিখছস, পুরোটাই মিথ্যা।’

সে সময় সাংবাদিক ফরহাদ ইউএনওকে প্রশ্ন করেন, ‘আপনি এভাবে কথা বলছেন কেন?’

তখন ইউএনও বলেন, ‘তোর সঙ্গে যে আমি কথা বলতেছিলাম, তখনও তো আমি ওই স্পটে ছিলাম ব্যাটা। তুই যে নিউজটা করছস, সেটা মিথ্যা…তুই বলছস যে, ঘর পানিতে ভাসছে। তুই যখন আমাকে ফোন দিছস, তখনও আমি স্পটে ছিলাম। আমার সিনিয়র স্যার ছিল।’

এদিকে গালাগালির অডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেন ইউএনও কায়সার খসরু।

আলোকিত প্রতিদিন/এপি

 

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন











All rights reserved. © Alokitoprotidin
এস কে. কেমিক্যালস এগ্রো লি: এর একটি মিডিয়া প্রতিষ্ঠান