1:43 pm |আজ বৃহস্পতিবার, ১২ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২৬শে মে ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরি

সংবাদ শিরোনাম:
সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচন দিতে সরকারকে ৬ দিনের সময় দিলেন ইমরান খান না ফেরার দেশে চলে গেলেন সত্যাশ্রয়ী মুক্তবুদ্ধি চর্চার অগ্রপথিক সেলিম বাগেরহাটে ট্রলির ধাক্কায় ২ জন নিহত লক্ষ্মীপুরে চাঁদাবাজির মামলা করায় প্রবাসীর বাড়ির  প্রাচীর ও ঘর ভাঙচুর, হুমকির অভিযোগ ক্রেতার অভাবে বিপুল পরিমাণ তেল নিয়ে সাগরে ভাসছে রাশিয়ার জাহাজ ফটিকছড়িতে ৭৮টি চোরাই মোবাইল ও কার সহ দুই যুবক গ্রেপ্তার  কুড়িগ্রামের রৌমারীতে মা ও শিশুকে হত্যার ঘটনায় ২ আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব সাভারে জন্মদিনের কথা বলে বন্ধুদের নিয়ে প্রেমিকাকে গণধর্ষণ ঘিওরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সমুদ্রে ট্রলার ডুবি, ১০ ঘণ্টা পর ১৫ জেলে জীবিত উদ্ধার




গরীবের ঈদের চাঁদ ওঠে তার ভাতের থালায়

গরীবের ঈদের চাঁদ ওঠে তার ভাতের থালায়




সফি সুমন

৩০ এপ্রিল, ঘড়িতে তখন রাত ২টা সতেরো মিনিট। সমগ্র দেশে চলছে ঈদুল ফিতরের ছুটি। চলছে ঈদে ঘরমুখো মানুষের অভিরাম ছুটে চলা। নাড়ীর টানে বাড়িফেরা মানুষের ঢল আর বাড়তি গাড়ির চাপে যেখানে সারাদেশ জ্যামে আটকে থাকে, সেখানে গাজীপুরের চন্দ্রা থেকে সাভারের নবীনগর পর্যন্ত সমস্ত রাস্তায় কি পরিমান জ্যামজটের সৃষ্টি হতে পারে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ঘণ্টা বা আধাঘণ্টা পরপর গাড়ি হাত দশেক সামনে এগোয় আবার পিছনের গাড়ি এসে সামনের ফাঁকা অংশ দখল করে তারাও ঘণ্টা বা আধ-ঘণ্টাব্যাপী দাঁড়িয়ে থাকে। বাইপাইল নবীনগরের মাঝামাঝি স্থানের নাম পল্লীবিদ্যুৎ বাজার বাসষ্ট্যান্ড। একমাত্র ঈদের ছুটি ছাড়া এই স্থানে কখনো গাড়ি ঘোড়ার জ্যাম অতোটা পরে না। এখানেই পরিচয় হকার রফিকুল ইসলামের সাথে।

রাত্রি দ্বি-প্রহর শেষে ফুটপাতের সকল হকারেরা দোকান বন্ধ করে ক্লান্তির ডাকে সাড়া দিয়ে যখন যার যার আপন ঢেড়ায় ঘুমে বিভোর, হকার রফিকুল তখন চলমান পরিস্থিতির স্বীকার জ্যামে আটকা গাড়ির জানালার পাশে বসে থাকা যাত্রীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন এক প্যাকেট পপকর্ণ ও আলুর চিপস বিক্রি করার জন্য। গভীর রাতে সামান্য লাভে কিছু পণ্য বিক্রির আশায় এ গাড়ি থেকে ও গাড়ির জানালায় গিয়ে ‘এই পপ্পন, এই আলুর চিপস’ শব্দে তার ডাকÑ যে কোনো মানবিক মনকে একটু নাড়া দিতেই পারে। দিন এনে দিন খাওয়া হকারি জীবন বড়ই কষ্টের, অমানুষীক পরিশ্রমের। দিন শেষে তার ক্ষানিক টাকা রোজগারেই হয়তো সংসারে থাকা বৃদ্ধ মা-বাবা অথবা ছেলে বউ-বাচ্চার ভরনপোষন আর কোনোমতে বেঁচে থাকার রশদ যোগায়।

প্রায় দেড় লাখ হকারের শহর ঢাকা হলেও রফিকুল ইসলাম এই হিসাবের বাহিরে। কারণ তার হকারি এলাকা গাজীপুরের চন্দ্রা থেকে বাইপাইল নবীনগরের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। বাড়ি তার যশোর ঝিনাইদহে। তিন বছর আগে জীবিকার সন্ধানে ঢাকায় এসেছিলো। কিন্তু কোথাও চাকরি না পেয়ে অবশেষে হকারি পেশায় নামতে বাধ্য হয়। কেন তিনি এই পেশাটাকেই বেছে নিলেন? এই প্রশ্নের উত্তরে বলেন ‘তয়লে কি কইরা খামু, হেই কেডা আছে যে আমারে একখান চাকরি দিবো? এমন জামানা যে কেউ না খাইয়া পইড়া থাইকলে একমুঠ ভাত আগায়া দেয় না। কম কষ্টে এই পেশায় আহি নাই, বাপ জানের বড় পোলা আমি, ছোডো দুইডা ভাই, একখান বুইন আছে আমার বড়, তয় হেডার বিয়া অয়ে গেছে। আমিই কিছু কিছু ইনকাম কইরা বাড়িত দিয়া কুনুমতে সংসার চালাইতাছি। এহুনকার অবস্থা বেশি ভালো না স্যার, জিনিসপত্রের যা দাম- তাতে মনে অয় আমার মতো পোলা বাজারে যাইয়া জিনিসপত্রের দিকে চাইয়া থাইকলেও পাপ অইবো, তাই বাজারে যাইতেও শরম করে। শরম না থাইকলেও শরম করে’।

ঈদে বাড়ি যাবে কিনা প্রশ্ন করা হলে বলেনকি যে কন স্যার, আমাগো আবার ঈদ, গরীব মাইনষের ঈদ আছে নাকি! ঈদ-মিদ ঐগুলা বড়োলোকগো জইন্যে, চাকরিআলাগো জইন্যে। পপ্পন-চিপস যে পরযন্ত বেচা পারি বেচমু, যহন দেখমু রান্তা-ঘাডে কুনু লোক নাই, হেই ফাঁকে এক ঘুড়ানি বাড়ি যাইয়া মাও বাপরে একনজর দেইখা আমু, পারলি যাইয়া দুই একদিন থাইকা আমু, বইয়া থাকার সমায় নাই আমার, এই যে দ্যাখেন না- রাইত তিনডার সমায় দৌঁড়াইতাছি, দুইডা ট্যাহার জন্যেই তো গাদার নাহাল খাডি! রফিকুলের মতো হয়তো এরকম হাজারো হকার শ্রমিকের কখনো ঈদের চাঁদ ওঠে না। তাদের ঈদ মাটি হয় দু-মুঠো ভাতের তলায়। সকল আনন্দ দূর হয় নোনা ঘামের গোসলে। গরীবের ঈদের চাঁদ ওঠে তার ভাতের থালায়।

আলোকিত/ এপি

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন











All rights reserved. © Alokitoprotidin
এস কে. কেমিক্যালস এগ্রো লি: এর একটি মিডিয়া প্রতিষ্ঠান