8:19 pm |আজ শনিবার, ১২ই অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ২৭শে নভেম্বর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২১শে রবিউস সানি ১৪৪৩ হিজরি




জনস্বার্থে বাড়তি ভাড়া সংক্রান্তে-সিএমপি’র উদ্যোগ

জনস্বার্থে বাড়তি ভাড়া সংক্রান্তে-সিএমপি’র উদ্যোগ




আব্দুল সাত্তার
জনস্বার্থে বাড়তি ভাড়া সংক্রান্তে-সিএমপি’র উদ্যোগে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ এর ট্রাফিক বিভাগ বিআরটিএ এবং মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সমন্বয়ে ডিজেল ও সিএনজি চালিত মোটরযান নির্ধারণপূর্বক আলাদা স্টিকার এবং ভাড়ার তালিকা লাগানো হচ্ছে। গতকাল সিএনজি এবং ডিজেল চালিত মোটরযানে স্টিকার ও ভাড়া নির্ধারণ সংক্রান্তে চট্রগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ এর ফেইসবুক পেইজে একটি পোস্ট দেয়া হয়। সেই পোস্টের কমেন্ট সেকশনে সম্মানিত জনগণ নানা বিষয়ে জানতে চেয়েছেন।
 জনস্বার্থে বাড়তি ভাড়া সংক্রান্তে উত্থাপিত এ সকল বিষয়াদি সংক্রান্তে আমাদের মন্তব্য ফ্রিকোয়েন্টলি আসকড কোয়েশ্চেন্স হিসেবে নি‌ম্নে উপস্থাপন করা হলো। পাশাপা‌শি, এ বিষ‌য়ে আমা‌দের চলমান কার্যক্রমের কিছু ছ‌বি এ পো‌স্টের সা‌থে সংযুক্ত করা হ‌লো।
১। মন্তব্যঃ বিভিন্ন রুটে চলাচলকারী হিউম্যানহলার, অটোটেম্পু, মাহিন্দ্র, ম্যাক্সিমা ভাড়া ঠিক করে দিলে সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে।
জবাবঃ এই সকল গণপরিবহণে ভাড়া নির্ধারণের জন্য বিআরটিএ (BRTA) কাজ করে যাচ্ছে। আমরা তা‌দের সা‌থে যোগা‌যোগ রে‌খে চ‌লে‌ছি। বিআরটিএ (BRTA) থেকে তালিকা পাওয়ার সাথে সাথে উল্লেখিত গণপরিবহণ সমূহে ভাড়ার তালিকা টানিয়ে দেওয়া হবে।
২। মন্তব্যঃ কোনটি ডিজেল চালিত এবং কোনটি সিএনজি চালিত তা চিহ্নিত করার ব্যবস্থা করা প্র‌য়োজন।
জবাবঃ- আজ সকাল ১১.০০ ঘটিকা হতে বিআরটিএ (BRTA) এর কর্মকর্তা এবং পরিবহণ মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ট্রাফিক বিভাগ ডিজেল এবং সিএনজি চালিত পরিবহণে সড়কের বিভিন্ন স্থানে স্টিকার লাগানোর কাজ করে যাচ্ছে।
৩। মন্তব্যঃ- নিউমার্কেট থেকে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ী ভাড়াটা লাগামহীন। ডাইরেক্ট যাবে বলে বেশি ভাড়া নিচ্ছে, তাই বাধ্য হয়ে উঠতে হচ্ছে।
জবাবঃ-৩নং রুটের এই পরিবহণ সমূহে ও ডিজেল চালিত , সিএনজি চালিত মটরযান এবং ভাড়ার তালিকা লাগানো হবে।
৪। মন্তব্যঃ-রিক্সা ভাড়া ও নির্ধারণ করে দেওয়া হোক।
জবাবঃ- এই বিষয়ে অচিরেই সিটি কর্পোরেশনের সাথে যোগাযোগ করে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
পুলিশের এমন একাধিক বিভিন্ন সেবাকে জনগণের আরও কাছে পৌঁছে দেওয়ায় জনহিতকর কার্যক্রম প্রসংশিত হচ্ছে। পুলিশ সম্পর্কে সাধারণত মানুষের মাঝে ইতিবাচক মনোভাব জনমনে সম্বৃদ্ধ হবে। তার সাথে পুলিশ সম্পর্কে জনগণের মধ্যে দূরত্বটাও কমে যাবে এবং মানবিক পুলিশ হিসেবে জনমনের হৃদয়ে গভীরে জাগ্রত হবে।
আলোকিত প্রতিদিন/১৩ নভেম্বর,২০২১/আর এম

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন











All rights reserved. © Alokitoprotidin
এস কে. কেমিক্যালস এগ্রো লি: এর একটি মিডিয়া প্রতিষ্ঠান