4:51 am |আজ মঙ্গলবার, ১৯শে শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ | ৩রা আগস্ট ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৩শে জিলহজ ১৪৪২ হিজরি

সংবাদ শিরোনাম:
পটুয়াখালীর খাস জমি বরগুনা জেলা থেকে বন্দোবস্ত নেয়ার অভিযোগ

পটুয়াখালীর খাস জমি বরগুনা জেলা থেকে বন্দোবস্ত নেয়ার অভিযোগ

প্রতিনিধি, বরগুনা :
পটুয়াখালী জেলার তিতকাটা মৌজার খাস খতিয়ানভুক্ত জমি বরগুনা জেলা থেকে বন্দোবস্ত নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। একশ্রেণীর ভূমি দস্যুদের বিরুদ্ধে। তবে স্থানীয়রা অভিযোগ করেন লিটন, মজিদ, মনোয়ারা, সোনামিয়া, হাসিনা, নয়া মিয়া জানায়, যে ঐ এলাকার অভিযুক্ত ভূমিদস্যু নাসির, মনোয়ারা,আবুল হোসেন, মহারাজ, বাদল শীল,বশির শরীফ,জালাল,রাজ্জাক এদের বিরুদ্বে বরগুনা জেলার আমতলী ভূমি অফিস কে ম্যানেজ করে অন্য জেলার জমি বন্দোবস্ত নেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে। ঘটনাটি বরগুনা জেলার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নে। ভুক্তভোগীরা আরও জানান, বরগুনা জেলার আমতলী উপজেলাধীন গুলিশাখালী মৌজার গুলিশাখালী ছোট নদীতে নতুন সৃজিত চর যা ১ নং খতিয়ানভুক্ত ৪৬০৬ /৫১১১ দাগে প্রায় ১৮ একর জমি যাহা পটুয়াখালী তিতকাটা মৌজায় এবার মনে হচ্ছে অন্তর্ভুক্ত আছে। যাহা ভূমিহীনদের মধ্যে বন্টন করা হয়। উক্ত সময় বড় বিঘাই ইউনিয়ন আমতলী উপজেলা যুক্ত থাকার কারণে তৎকালীন সার্ভেয়ার গুলিশাখালী বাজার হইতে নাইয়া পারা পর্যন্ত বাটা দাগ করিয়া এর প্রতি দাগের ৫০ শতাংশ ইহার নামায় বা নদীর পাশে পশ্চিম দিকে তিতকাটা মৌজা নামে তাদেরকে বন্দোবস্ত দেয়। উল্লেখ্য যে গুলিশাখালী খতিয়ান তিতকাটা এই দুই খতিয়ানে ৮৮/৮৯ সালে এক একর করে কৃষি খাসজমি গুচ্ছগ্রাম করে চাওরা মৌজায় বর্তমান পৌরসভায় ৫ শতাংশ করে এই গুচ্ছ গ্রামবাসীদের বাড়ির জমি দেওয়া হয় তৎকালীন সময়। আর কৃষি জমি ঐ তিতকাটা মৌজা থেকে দেওয়া হয়। ভুক্তভোগীরা বলেন আমরা উক্ত জমি ভোগ দখল করিয়া আসিতেছি। বর্তমান সার্ভার ইকবাল হোসেন কানুনগো পদে দায়িত্বপ্রাপ্ত থাকায় দুইটি পদের দায়িত্ব থাকিয়া সহকারী কমিশনার ও উপজেলা নির্বাহি অফিসার কে ভুল বুঝাইয়া জেলা প্রশাসক অফিস থেকে তিতকাটা মৌজার নাম পরিবর্তে গুলিশাখালী মৌজার দাগ দেখিয়ে জন প্রতি দাগ ৫০ শতাংশ জমির পরিবর্তে এক একর জমি বন্দোবস্ত দিয়েছে। যাহা তিতকাটা মৌজা দাগ নং ৪৬০৬/৫১১১৪৬০৬/৫১১২,৪৬০৬/৫১১৩,৪৬০৬/৫১১৪,৪৬০৬/৫১১৫,৪৬০৬/৫১১৬,৪৬০৬/৫১১৭,৪৬০৬/৫১১৮,৪৬০৬/৫১১৯, এই জমি তিতকাটা মৌজার ইহা আমতলী উপজেলা গুলিয়াখালী মৌজা দেখিয়ে বন্ধবস্ত বর্তমানে দিতেছে। তাতে ৮৮/৮৯ সালে গুচ্ছ বাসীদের প্রত্যক্ষের ৫০ শতাংশ করে জমি বর্তমানে পটুয়াখালী জেলার অধীনে উক্ত দাগগুলি উল্লেখিত তিতকাটা মৌজার দাগ। যাহা গুলিশাখালী মৌজা দেখাইয়া প্রতিটা ১০০ শতাংশ বৃদ্ধি করিয়া বর্তমানে গুলিশাখালী মৌজার জনপ্রতি এক একর জমি জনপ্রতি বন্দোবস্ত দিতেছে। ঐ জমির রেকর্ড সংশোধন করে কবুলিয়াত এর শর্ত মোতাবেক ভোগ দখলে দিতেছে। ইহা আইন বিরোধী যাতে মাননীয় জেলা প্রশাসক মহোদয় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে বন্দোবস্ত না দিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রদান করেন এবং প্রকৃত ভূমিহীনদের মাঝে বন্দোবস্ত দেয়ার দাবি জানান তারা।

আলোকিত প্রতিদিন/৩০ মে, ২০২১/ দ ম দ

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

All rights reserved. © Alokitoprotidin
এস কে. কেমিক্যালস এগ্রো লি: এর একটি মিডিয়া প্রতিষ্ঠান