আজ বৃহস্পতিবার, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ ।   ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

লকডাউনে খাবার ফুরিয়ে যাওয়া সেই ব্যাংক কর্মকর্তার পাশে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী

-Advertisement-

আরো খবর

- Advertisement -
- Advertisement -

::প্রতিনিধি,  সাতক্ষীরা::

সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা ইউনিয়নের নওয়াপাড়া গ্রামে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যাংক কর্মকর্তার পাশে দাঁড়িয়েছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাতক্ষীরা-৩ আসনের এমপি ডা. আ ফ ম রুহুল হক। গত শনিবার (১৩ জুন) সন্ধ্যায় করোনা আক্রান্ত ব্যাংক কর্মকর্তার সঙ্গে ফোনে কথা বলে সাহস জোগান ও সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন। এর আগে তিনি জানান, বাড়ির খাদ্যসামগ্রী ফুরিয়ে গেছে এবং সে পর্যন্ত কোন মাধ্যমই তার খোঁজ খবর রাখেনি।

শনিবার সকাল ১০টার দিকে ওই ব্যাংক কর্মকর্তা বলেছেন, ‘করোনা আক্রান্ত হওয়ায় ৮ জুন থেকে আমার বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছে প্রশাসন। তারপর থেকে বাড়িতেই রয়েছি। এখনও কেউ খোঁজ নেয়নি। স্বাস্থ্য বিভাগ থেকেও এক মিনিট ফোনে কথা বলেনি। বাড়ির খাদ্যসামগ্রী ফুরিয়ে গেছে। করোনা শনাক্ত হওয়ায় আশপাশের লোকজনও আসে না। কাকে বলব বুঝতে পারছি না। আমার বাড়িতে কোনো খাবার নেই।’

তার এই বিষয়টি নলতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, কালিগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শেখ তৈয়েবুর রহমান ও কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোজাম্মেল হক রাসেলকে জানানো হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক রাসেল ঘটনাটি জেনে ব্যবস্থা নিচ্ছি বলেও সন্ধ্যা পর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা নেননি। অন্যরা বিষয়টি নিয়ে ভাবেননি।

- Advertisement -

সন্ধ্যায় ওই ব্যাংক কর্মকর্তা  বলেন, ‘দুপুরে স্বাস্থ্য কর্মকর্তা শরীর কেমন আছে জানতে চেয়েছিলেন। সারা দিনে আর কেউ খোঁজখবর নেয়নি। সন্ধ্যায় এমপি রুহুল হক ফোন দিয়ে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন।’

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাতক্ষীরা-৩ আসনের এমপি ডা. আ ফ ম রুহুল হক বলেন, ‘বাড়ি লকডাউন করে ওই ব্যক্তির খোঁজখবর না রাখা খুবই দুঃখজনক। এটি ঠিক নয়। তার বাড়িতে খাবার সামগ্রী পৌঁছে দেয়া উচিত। আমি সবার সঙ্গে কথা বলব। কেন তার সঙ্গে এমন আচরণ করা হলো।’ তিনি বলেন, ‘আমি ওই ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলেছি, খোঁজখবর নিয়েছি। সব বিষয় আমি দেখব বলে আশ্বস্ত করেছি। তার বাড়িতে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

- Advertisement -
- Advertisement -