আজ শনিবার, ৩০ মে ২০২০, ০৬:৩৭ অপরাহ্ন

জীবাণুনাশক টানেল সব থানাতে এখনো নয় কেন?

জীবাণুনাশক টানেল সব থানাতে এখনো নয় কেন?

::তুষার আহসান::
করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সম্মুখ যোদ্ধাদের মধ্যে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যসেবাদানকারী সদস্যরা, সাংবাদিক, ব্যাংকার, খাদ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান কর্মকর্তা, কর্মচারী ও কৃষক, ডাক সংশ্লিষ্টরা ছাড়াও অন্যতম সারিতে রয়েছেন পুলিশ-আর্মিসহ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা। রয়েছেন জেলাপ্রশাসন সদস্যবৃন্দ। দায়িত্বপালন করতে গিয়ে সব বিভাগ মিলে ইতোমধ্যে কয়েক হাজার আত্রান্ত ও বেশ কয়েকজন মৃত্যুর কাছে পরাজিতও হয়েছেন। এমন এক পরিস্থিতিতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ রোধে আজ বুধবার (২০ মে ) গাইবান্ধা সদর থানায় জীবানুণাশক টানেল স্থাপন করা হয়েছে। নিঃসন্দেহে এটি প্রশংসার দাবি রাখে। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে ধন্যবাদ। এমন টানেল সব থানাতে নয় কেন? করা কী যেত না? আমাদের মনে রাখতে হবে, সবারই আপন কেউ না কেউ আছে। কান্নার কেউ আছে। বেদনা বহনে কষ্ট হবে তাদের। তাই দরকার আগেই সচেতনতা।
আমরা জেনেছি, এমন একটি টানেল স্থাপনে আহামরি খরচ হয়নি। আবার দৈনন্দিন ব্যয়ও খুব বেশি নয়। প্রতিটি জেলাই এখন উন্নত। প্রত্যেক জেলাতেই বিত্তবানদের ছড়াছড়ি। তাদের এগিয়ে আসা উচিৎ। যদিও তাদের অনেককেই ত্রাণ দিতে দেখা গিয়েছে। অনেকে গোপনেও সহযোগিতা করছেন বলে আমরা জেনেছি। তাদেরকে ধন্যবাদ। এক দিকে যেমন সমালোচিত চাল চোরেরা, অন্যদিকে তেমনই অ্যক্টিভ বৃত্তবানেরা। কিন্তু এই দান কি সঠিক নিয়মে দেওয়া হচ্ছে? নজর রাখতে হবে সেদিকেও।
নিজস্ব ফান্ড থেকেও প্রতিটি থানায় নিজেরাই ব্যবস্থা করে নেওয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে যে সব থানা অসহায়দের পাশে নিজেদের অর্থ ও খাদ্য সহায়তা নিয়ে দাঁড়িয়েছেন- তাদের কষ্ট হবে। কিন্তু এটা প্রয়োজন। খুব প্রায়োজন। নিরাপদে থাকলে, নিরাপদে রাখা যাবে।
করোনাপ্রতিরোধে সম্মুখ যোদ্ধাদের জয় হোক। তারা নিরাপদে সুস্থ থাকুন- শুভ প্রত্যাশা সব সময়।

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

All rights reserved. © Alokitoprotidin
Developed By Sbtechbd