2:17 pm |আজ বৃহস্পতিবার, ১২ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ২৬শে মে ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৪শে শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরি

সংবাদ শিরোনাম:
সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচন দিতে সরকারকে ৬ দিনের সময় দিলেন ইমরান খান না ফেরার দেশে চলে গেলেন সত্যাশ্রয়ী মুক্তবুদ্ধি চর্চার অগ্রপথিক সেলিম বাগেরহাটে ট্রলির ধাক্কায় ২ জন নিহত লক্ষ্মীপুরে চাঁদাবাজির মামলা করায় প্রবাসীর বাড়ির  প্রাচীর ও ঘর ভাঙচুর, হুমকির অভিযোগ ক্রেতার অভাবে বিপুল পরিমাণ তেল নিয়ে সাগরে ভাসছে রাশিয়ার জাহাজ ফটিকছড়িতে ৭৮টি চোরাই মোবাইল ও কার সহ দুই যুবক গ্রেপ্তার  কুড়িগ্রামের রৌমারীতে মা ও শিশুকে হত্যার ঘটনায় ২ আসামীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব সাভারে জন্মদিনের কথা বলে বন্ধুদের নিয়ে প্রেমিকাকে গণধর্ষণ ঘিওরে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় এক যুবককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড সমুদ্রে ট্রলার ডুবি, ১০ ঘণ্টা পর ১৫ জেলে জীবিত উদ্ধার




ঋণ খেলাপিরাও পাবে শিল্পখাতে প্রণোদনার অর্থ

ঋণ খেলাপিরাও পাবে শিল্পখাতে প্রণোদনার অর্থ




::নিজস্ব প্রতিবেদক::
করোনাভাইরাস সঙ্কট মোকাবেলায় শিল্প খাতের জন্য সরকার ৩০ হাজার কোটি টাকার যে প্রণোদনা প্যাকেজ করেছে, তাতে খেলাপিদের ঋণ দেওয়ার যে বিধিনিষেধ ছিল, তা তুলে নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক প্রণীত ইন্টারনাল ক্রেডিট রিস্ক রেটিং (আইসিআরআর) নীতিমালার শর্ত শিথিল করার মাধ্যমে ঋণ খেলাপিদের এই সুবিধা দেওয়া হয়েছে। রোববার নেওয়া কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই সিদ্ধাতের ফলে এখন যে কোনো শিল্পদ্যোক্তা এই তহবিল থেকে ঋণ নিতে পারবেন।
কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে দাপ্তরিক কার্যক্রম সীমিত হয়ে পড়ায় আইসিআরআর কার্যক্রম ব্যাহত ও ঋণ গ্রহীতার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সরবরাহে বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়াকে বিধিনিষেধ শিথিলের কারণ দেখিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক।
সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো নির্দেশনায় বলা হয়েছে, “এই দুর্যোগপূর্ণ অবস্থায় শিল্প ও সেবা খাতের আওতায় তাদের কার্যক্রম দ্রুত চালু করার জন্য প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণ সুবিধা দিতে আইসিআরআর সম্পন্ন না করেও ব্যাংক ঋণ দিতে পারবে।” তবে নিজেরা বিধিনিষেধ তুলে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোর উপর দায়িত্ব দিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। নির্দেশনায় ‘তবে’ যুক্ত করে বলা হয়েছে, “প্রতিটি ব্যাংক বিদ্যমান নিজস্ব নীতিমালার আওতায় ঋণ ঝুঁকি বিশ্লেষণপূর্বক ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে গ্রাহক নির্বাচন করবে।”
করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে দেশে সম্ভাব্য অর্থনৈতিক ক্ষতি মোকাবেলায় সরকার শিল্প খাতের জন্য যে ৩০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে, তাতে ব্যাংক থেকে ৯ শতাংশ সুদে ঋণ দেওয়া হবে। এর ৪.৫ শতাংশ ঋণগ্রহীতা শোধ করবে, বাকি ৪.৫ শতাংশ সরকার ভর্তুকি হিসেবে দেবে। গত ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দেওয়ার পর ১২ এপ্রিল ওই প্রণোদনা প্যাকেজের নীতিমালা ঘোষণা করে বাংলাদেশ ব্যাংক। তাতে বলা হয়, এই প্রণোদনা প্যাকেজের অর্থ কোনো ঋণ খেলাপিরা পাবে না। এমনকি যে সব ঋণ খেলাপি বিভিন্ন সময়ে সরকারের দেওয়া সুযোগ নিয়ে তিন বারের বেশি তাদের ঋণ পুনঃতফসিল করেছেন, তারাও এই প্রণোদনার অর্থ পাবে না বলে উল্লেখ ছিল নীতিমালায়। রোববার এই বিধিনিষেধটিই তুলে নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
প্রণোদনা প্যাকেজের ঘোষণার সময় অর্থনীতিবিদরা সুপারিশ করেছিলেন, এই অর্থ যেন ঋণ খেলাপিরা না পায়। এখন সেই সুযোগ দেওয়ার সমালোচনা করে গবেষণা সংস্থা পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘ঋণ খেলাপিরাই তো প্রণোদনার সব অর্থ খেয়ে ফেলবে। অন্যরা বা ভালো উদ্যোক্তারা কিছুই পাবে না। এতে ব্যাংকগুলো আরও সঙ্কটে পড়বে। তাদের জন্য জন্য অশনি সংকেত।’
ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান মনসুর বলেন, ‘বাংলাদেশের ঋণ খেলাপি সংস্কৃতি খুবই খারাপ। একবার ব্যাংক থেকে টাকা নিলে কেউ আর ফেরত দিতে চায় না। সে কারণেই লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে খেলাপি ঋণ। ব্যাংকগুলোকে সংকটে ফেলে দিয়েছে। এই সংকটের সময়ে আবার তারাই যদি ঋণ পায়; ফেরত দেবে না। অতীতের ইতিহাস তাই বলে। তাহলে যে উদ্দেশ্যে সরকার প্রণোদনা দিচ্ছে, তা ব্যাহত হবে।’

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন











All rights reserved. © Alokitoprotidin
এস কে. কেমিক্যালস এগ্রো লি: এর একটি মিডিয়া প্রতিষ্ঠান