কলাপাড়ায় সাত বীরশ্রেষ্ঠ’র নামে সাতটি পাঠাগার প্রতিষ্ঠিত

কলাপাড়া (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় মহান বিজয়ের মাসে জাতির সূর্য সন্তান সাত বীরশ্রেষ্ঠ’র নামে সাতটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সাতটি পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বই পড়ায় আগ্রহী করে তোলা, সৃজনশীল কাজে সম্পৃক্তসহ নেতৃত্ব বিকাশের জন্য এসব পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা একশন এইড বাংলাদেশ ও বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা আভাস এর সহযোগিতায় কলাপাড়া উপজেলার চম্পাপুরের বোর্ড সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্য পাটুয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব পাটুয়া সরাকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, লালুয়া হাটখোলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, চান্দু পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, দক্ষিন ডাবলুগঞ্জ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও হাজী কান্দা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এসব পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

স্কুল ভিত্তিক এসব পাঠাগার পরিচালনার জন্য দু’দিন ব্যাপী প্রশিক্ষনের আয়োজন করে একশন এইড বাংলাদেশ ও আভাস। প্রশিক্ষনে সাতটি বিদ্যালয়ে ১৪ জন শিক্ষক শিক্ষিকাসহ মোট ২০জন অংশগ্রহণ করে। প্রশিক্ষনার্থীদের প্রশিক্ষন পরিচালনা করেন একশন এইড বাংলাদেশ’র স্পন্সরশীপ ম্যানেজার মনিকা বিশ্বাস। শুক্রবার দিনব্যাপী কলাপাড়া অফিসার্স ক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ প্রশিক্ষনে শিশু সুরক্ষা, শিশু বান্ধব শিক্ষা পরিবেশ ও বিদ্যালয় সজ্জা বিষয়ে প্রশিক্ষণার্থীদের হাতে কলমে শেখানো হয়।

পরে প্রশিক্ষন গ্রহণকারী প্রতিটি বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের হাতে পাঠাগারের জন্য বুক সেলফ ও শিশুতোষ নানা বই তুলে দেন আভাসের নির্বাহি পরিচালক রহিমা সুলতানা কাজল। এসময় অন্যানের মধ্যে উপিস্থত ছিলেন কলাপাড়া প্রেসক্লাব সভাপতি মেজাব উদ্দিন মাননু, ঘূর্নিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচির সহকারী পরিচালক আসাদ-উদ-জামান, আভাসের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মনিরুল ইসলাম।

আভাসের প্রকল্প ব্যবস্থাপক মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ছাড়াও ছড়া, কবিতা শিশুতোষ উপন্যাস, বিজ্ঞান ভিত্তিক উপন্যাসের প্রায় সাড়ে চার শতাধিক বই প্রতিটি বিদ্যালয়ের পাঠাগারের জন্য দেয়া হয়েছে। শিশুদের মাঝে পাঠাভ্যাস গড়ে তোলা যায় তবে সে নিজেকে সৃজনশীল কাজে সম্পৃক্ত করবে। অপসংস্কৃতি থেকে দুরে থাকবে। উন্নত মানসিকতার অধিকারী হবে।

আলোকিত প্রতিদিন/০৮ ডিসেম্বর/আরএ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন