ফের মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী নির্যাতনের শিকার, পিটিয়ে রক্তাত ও যখম, ছাত্রীর অবস্থা আশংকাজনক | আলোকিত প্রতিদিন

ফের মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী নির্যাতনের শিকার, পিটিয়ে রক্তাত ও যখম, ছাত্রীর অবস্থা আশংকাজনক

Spread the love

এ.কে.এম ফারুক হোসেন, নোয়াখালী: নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ উপজেলার ০২নং গোপালপুর ইউনিয়নের মধুপুর দাখিল মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী তামান্না আক্তারকে অভিযুক্ত শিক্ষক মো: খোরশীদ আলম বেদম পিটিয়ে রক্তাত আহত করে। পরে স্থানীয় জনগন তাকে উদ্ধার করে, চৌমুহনী লাইফ কেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করে। অভিযোগে প্রকাশ জে.ডি.সি পরীক্ষা ৪র্থ দিনে তামান্না আক্তার পরীক্ষা দেওয়ার উদ্দেশ্যে মাদ্রাসা প্রাঙ্গনে হাজির হয় অনুমানিক সকাল ৮.৩০ মি: এর সময়। এই সময় তামান্না আক্তার সহ অন্যান্য ছাত্র ছাত্রীরা অপেক্ষা করছিলো বাসে করে পরীক্ষা কেন্দ্রে যাওয়ার জন্য। ঠিক তখনি অভিযুক্ত শিক্ষক মো: খোরশেদ আলম পরীক্ষার্থী তামান্নাকে যৌন হয়রানির উদ্দেশ্যে তার গায়ে হাত দিলে তামান্না এতে প্রতিবাদ করে। তখনি তার হাতে থাকা বেত দিয়ে এলোপাতাড়ি পিটাতে থাকে মাগো, বাবাগো বলে ও তার হাত থেকে রেহাই পায় নাই। এই সময় অপেক্ষারত শিক্ষার্থীরা তামান্নাকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য অনুনয় বিননয় করে। কিন্তু তাদের কথায় কর্ণপাত না করে প্রায় ৩০/৩৫টি বেত তামান্নার শরীরে প্রয়োগ করার ফলে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। অভিযুক্ত শিক্ষক মো: খোরশীদ আলমকে কৃর্তপক্ষ আইন শৃংখলা বাহিনীর হাতে তুলে না দিয়ে গোপনে পালিয়ে যেতে সহায়তা করে। ঘটনা তদন্ত সরজমিনে প্রাথমিক ভাবে অভিযুক্ত শিক্ষককে পালিয়ে যেতে সহায়তা করে মধুপুর দাখিল মাদ্রাসা কমিটির সদস্য ও জাসদ নেতা মো: লকিউত উল্যাহ ও শিক্ষক সহকারী প্রধান রফিকুল ইসলাম ও মাদ্রাসা সুপার এবং অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ। ঘটনাটি ভিন্ন খাতে দামাচাপা দেওয়ার জন্য কমিটি এবং শিক্ষক বৃন্দ জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। উক্ত সদস্য ও জাসদ নেতা লকিউত উল্যাহ বলেন “এটা আমাদের মাদ্রাসার আভ্যান্তরীন ব্যাপার সাংবাদিকের এখানে কাজ কি। আমরা ঘরোয়া ভাবে মীমাংসা করে ফেলবো”। উত্তেজিত জনতা এগিয়ে এলে আওয়ামীলীগ নেতা মো: আরিফ তাদেরকে শান্ত থাকা জন্য ও সুষ্ঠ বিচারের আশ্বাস দিলে উত্তেজিত জনতা মাদ্রাসা প্রাঙ্গন ত্যাগ করে। এই রিপোট লেখা পর্যন্ত তামান্নার শারীরিক অবস্থা শংকামুক্ত নহে বলে জানান লাইফ কেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসক। খবর পেয়ে বেগমগঞ্জ মডেল থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।

 

 

 

আলোকিত প্রতিদিন/৭ নভেম্বর/আসাদ

এই সংবাদ ৩৮ বার পঠিত।
ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন