অপরাধ দমনে বিট পুলিশিং কার্যক্রমের আওতায় কক্সবাজার জেলা পুলিশ

মোহাঃ আবু সায়েম , কক্সবাজারঃ অপরাধ দমনে বিট পুলিশিং কার্যক্রম বাস্তবায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন কক্সবাজার জেলা পুলিশ । আপনাদের তথ্য আমাদের পাথেয় এ স্লোগানকে ধারণ করে সারা দেশের ন্যায় চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বিপিএম (বার) এর নির্দেশে কক্সবাজার জেলা পুলিশের সুযোগ্য পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইন ,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন)ইকবাল হোসাইন এর সার্বিক তত্ত্ববধায়নে কক্সবাজার জেলায় অপরাধ দমনে বিট পুলিশিং কার্যক্রম বাস্তবায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। বিট কার্যক্রমের অংশ হিসেবে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় উক্ত কার্যক্রম শুরু করেছেন কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি সৈয়দ আবু মোহাঃ শাহজাহান কবীর। কক্সবাজার জেলাকে মাদক , সন্ত্রাস , ডাকাত জঙ্গি , চাদাঁবাজ, বাল্যবিবাহ,সাইবার ও সামাজিক অপরাধ প্রতিরোধে সর্বোপরি নিরাপত্তার চাদরে আচ্ছাদিত করতে বিট পুলিশিং কার্যক্রম বাস্তবায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে ।

                                         

বিট কার্যক্রম শুরু করেছেন সদর মডেল থানাঃ নবাগত ওসি

বিট পুলিশিং কার্যক্রম হলো, পুলিশ ও জনসাধারণ উভয়কে সহযোগিতা করে মডেল শহর ও সমাজে টেকসই সুরক্ষার ব্যবস্থা করা । পুলিশের কার্যকরিতা জোরদার করতে মূলত অপরাধ দমনে স্বতস্পূর্ত ভূমিকা পালন করতে বিটের মাধ্যমে পুলিশিং কার্যক্রমকে গতিশীল এবং নিরাপদ সম্প্রদায় গঠন করে কাজে লাগানো । বিট পুলিশিং কার্যক্রমের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলাকে মডেল ও নিরাপদ জেলায় রুপান্তরে সহযোগিতা করবে। উক্ত কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হলে অপরাধ ও অপরাধী সম্পর্কে বুদ্ধি সংগ্রহ করা, পুলিশের সাথে নিয়মিত যোগাযোগের মাধ্যমে নাগরিকের মাধ্যমে আস্থা বাড়ানো , সাধারণ মানুষের মাঝে পুলিশ সম্পর্কে ভয় কমিয়ে এনে বন্ধুত্বের সেতু স্থাপনে সহায়তা করা , ইভটিজিং প্রতিরোধ , মাদকবিরোধী কর্মসূচি বাস্তবায়ন , অপরাধীদের গ্রেপ্তার ,পরোয়ানা কার্যক্রম, মাদকদ্রব্য উদ্ধার , অস্ত্র উদ্ধারসহ নিয়মিত টহল জোরদার, গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ , ও অন্যান্য সামাজিক সমস্যার সমাধানে তথ্য সংগ্রহ করে পুলিশের জনকল্যাণমূলক সকল কার্যক্রমের গতিকে তরান্তিত করে সুন্দর সমাজ ও শহর বিনির্মানে একাগ্রচিত্তে কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা ।

সারা দেশের ন্যায় কক্সবাজারের ৮ উপজেলায় বিট কার্যক্রম উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে । সর্বপ্রথম উক্ত কার্যক্রম শুরু করেছেন কক্সবাজার সদর মডেল থানার ওসি সৈয়দ আবু মোহাঃ শাহাজাহান কবীর । তিনি বলেন,পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইন ,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোসাইন এবং সদর সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আদিবুল ইসলামের সার্বিক তত্বাবধায়নে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় বিট কার্যক্রম চালু করা হয়েছে । মাদকম্ক্তু মডেল থানা রুপান্তর, মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতিকে বাস্তবায়ন, সদর মডেল থানার আওতাভুক্ত সকল এলাকায় অতিরিক্ত টহল জোরদার, পর্যটন শহরে পর্যটক এবং স্থানীয়দের জানমালের নিরাপত্তাসহ সামগ্রিক কার্যক্রমকে গতিশীলের অনন্য কার্যক্রম বিট কার্যক্রম । তিনি আরো বলেন, উক্ত কার্যক্রম বাস্তবায়িত হলে ফোর্স সামগ্রিক এলাকায় একাগ্রচিত্তে তথ্য সংগ্রহ করে জনগণের সাথে সুসম্পর্ক রেখে অপরাধী এবং মাদক ব্যবসায়ীদের চিহিৃত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে। এক্ষেত্রে পুলিশ ও জনগণ সেতুবন্ধন হয়ে কাজ করবে । অপরাধ নির্মূল, প্রকৃত অপরাধীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা , কোন নিরীহ ব্যক্তি যাতে হয়রানির শিকার না হয়, গোয়েন্দা তথ্য ও ফোর্সের মাধ্যমে তা যাচাই বাছাই করে বিট কার্যক্রমের গতিকে তরান্বিত করে সদর মডেল থানাকে শ্রেষ্ঠ মডেল থানা এবং নিরাপত্তার চাদরে আচ্ছাদিত করতে সদর মডেল থানার টিমদের সাথে নিয়ে একাগ্রচিত্তে কাজ করে অধিকতদও ফলফ্রসু যুগোপযোগী সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা হচ্ছে বিট কার্যক্রমের মৌলিক উদ্দেশ্য ।

এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) ইকবাল হোছাইন বলেন, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক এবং পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসাইনের নির্দেশে আমরা ৮ উপজলোয় বিট পুলিশিং কার্যক্রম বাস্তবায়নে উদ্যোগ গ্রহণ করেছি । ইতিমধ্যে কক্সবাজার সদর মডেল থানায় উক্ত কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বাকি ৭ উপজলায় বিট কার্যক্রমের মাধ্যমে অপরাধ দমনে উক্ত পদ্ধতি বাস্তবায়নে দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে । অপরাধ দমনে পুলিশিং কার্যক্রমের গতিকে তরান্তিত করতে বিট পুলিশিং কার্যক্রম অনন্য ভূমিকা পালন করবে। সারা দেশে উক্ত কার্যক্রম আরম্ভ হয়েছে। বিট পুলিশি কার্যক্রম মূলত অপরাধ দমনে একটি সৃজনশীল কার্যক্রম । এর উদ্দেশ্য হচ্ছে মূলত পুলিশ ও জনগণকে এক সাথে নিয়ে জনগণের সেবার কার্যক্রমের গতিকে তরান্বিত করা । তিনি আরো বলেন , বিট কার্যক্রমের আওতা ও পরিধি অত্যন্ত ব্যাপক । কক্সবাজার জেলাকে মডেল জেলা রুপান্তর, মাদকমুক্ত কক্সবাজার বিনির্মান এবং শান্তি ও শৃঙ্খলার নগরী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে অপরাধ দমনে বিট পুলিশিং কার্যক্রম একটি মাইলফলক হিসেবে সৃজনশীল কার্যক্রমের অংশ হিসেবে জনগণকে প্রত্যক্ষ সেবা প্রদানে অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।

 

 

 

আলোকিত প্রতিদিন/৩ ডিসেম্বর/আসাদ

এই সংবাদ ৪৯ বার পঠিত।
ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন
%d bloggers like this: