পুলিশের প্রেম । মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন

পুলিশের প্রেম

মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন

 

চট্টগ্রামের একটা আলোচিত ঘটনা দিয়ে লেখালেখিটা শুরু করতে চাই। গণমাধ্যমের বদৌলতে ঘটনাটি সবার মুখেমুখে।
৭ জানুয়ারি-২০১৯, রাত আটটা। কনকনে শীত। চট্টগ্রাম মহানগরের আগ্রাবাদ জাতিতাত্বিক জাদুঘরের সামনের ফুটপাতে ময়লা পানিতে ভরপুর ছোট্ট নালা। সেই নালার পাশে প্রসব যন্ত্রণায় ছটফট করছিলেন মানসিক ভারসাম্যহীন এক নারী। আশপাশে বহু মানুষ দাঁড়িয়ে ওই নারীর আর্তনাদ দেখছিলেন। কিছুক্ষণের মধ্যে মৃত্যু যন্ত্রণা উপেক্ষা করে ওই নারী ফুটপাতে জন্ম দিলেন ফুটফুটে এক শিশু। মায়ের নাড়িতে জড়িয়ে থাকা নবজাতকটি (শিশুটি) ফুটপাতের ধুলোবালিতে গড়াগড়ি খাচ্ছিল। ততক্ষণেও কোনো লোক এগিয়ে এলো না। বাড়িয়ে দেননি কেউ সহযোগিতার হাত, ওই অসহায় মানসিক ভারসাম্যহীন প্রসূতি মা ও তাঁর পিতৃপরিচয়হীন শিশু সন্তানটির প্রতি। অনেকটা সবাই হা করে শিশুটির ভুবন ফাটানো কান্না আর মায়ের আত্মচিৎকার উপভোগ করছিলেন।
এরকম পরিস্থিতিতে কোনো বিবেকবান মানুষ দাঁড়িয়ে থাকতে পারে ? মোটেও না।
মুহুর্তের মধ্যে ঘটনাস্থলে ছুটে এলেন একজন মানুষ। তিনি দ্রুত মা ও শিশুটিকে নিয়ে গেলেন পাশের হাসপাতালে। পকেটের টাকা খরচ করে প্রাণে বাঁচলেন মা ও শিশুকে।
যিনি মা ও শিশুটিকে রক্ষা করলেন তাঁর নাম মাসুদুর রহমান। তিনি পুলিশের একজন গর্বিত সদস্য। তিনি ডবলমুরিং থানা পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মাসুদুর রহমান। মানবিক ভুমিকা পালনের জন্য এসআই মাসুদুর রহমানের সুনাম আজ দেশব্যাপী। মুমুর্ষ মানব সন্তানকে প্রাণে বাঁচিয়ে তিনি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন, পুলিশ বাহিনীর ভাবমূর্তি উজ্জল করেছেন।
পুুলিশ শুধু খারাপ কাজটি করে, তা কিন্তু না। এসআই মাসুদুর রহমানের মতো অনেক মানবিক পুলিশ দেশে আছেন। এরকম মানবিক কাজের উদাহরণ অনেক দেয়া যায়। পুলিশের জন্মও সম্ভবত একারণে।
ইংরেজি ‘Police’ শব্দের অর্থ তা ই প্রমাণ করে।
যেমনঃ-
P-Polite (ভদ্র)
O-Obedient (বাধ্য)
L-Loyet (অনুগত্য, বিশ্বস্ত)
I-Intelligent (বুদ্ধিমান, মেধাসম্পন্ন)
C-Courageous (নির্ভিক,সাহসী)
E-Efficient (দক্ষ)
অর্থাৎ পুলিশের আচরণ হবে সুন্দর ও মানবিক। একজন পুলিশ সদস্য সুন্দর ব্যবহারের মাধ্যমে মানুষের মন জয় করেন, মানুষকে অন্যায় কাজ থেকে দুরে রাখতে পারেন। মানুষ যেটা পারেনা, পুলিশ সেই কাজটা করে দেখিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারেন। একজন আদর্শবান পুলিশ দেশ ও জাতির সম্পদ। একজন পুলিশ সরকারের আইন প্রয়োগকারী, আইন রক্ষাকারী ও মানুষকে বিভিন্ন আইনি সহায়তা দিয়ে থাকেন। তবে কিছু পুলিশ সদস্য তাঁর মূল আদর্শ থেকে বিচ্যুত হয়ে বিভিন্ন খারাপকাজ অথবা অপরাধে জড়িয়ে পড়েন। ঘুষ-দুর্নীতি অথবা অন্যায়ভাবে আয়রোজগার করেন। তাঁরা মানুষের কাছে মানবিক পুলিশ হতে পারেন না। পুলিশের মতো সকল পেশায় এরকম কিছু দুষ্টবুদ্ধি-খারাপ প্রকৃতির মানুষ থাকেন। তারা তাদের দায়িত্ব আদর্শ এবং দায়বদ্ধতা থেকে বিচ্যুত হয়ে যান। অন্যদিকে একজন মানবিক, সৎ, বুদ্ধিসম্পন্ন ও সাহসী পুলিশই পাওে, পুলিশ বাহিনীর সুনাম ধরে রাখতে, দেশের আইনশৃংখলা ঠিক রাখতে। জনগণের বন্ধু হতে।
বাংলাদেশ পুলিশের কাজ অনেক। আইনশৃংখলা রক্ষা, অপরাধ দমন, অপরাধীদের গেস্খপ্তার, মামলা গস্খহণ, বিচারে সহায়তা, সড়কের শৃংখলারক্ষা, ভিআইপি নিরাপত্তা-প্রটৌকলসহ অনেক দায়িত্ব পালন করতে হয় পুলিশকে। গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহ ও প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগও পুলিশের নিতে হয়। বলতে গেলে এক পুলিশের অনেক কাজ।
দেশে এখন পুলিশের মোট জনবল ১ লাখ ৯৫ হাজার ৫২০ জন। জাতিসংঘের মান অনুযায়ী শান্তির সময় নাগরিক এবং পুলিশের আদর্শ অনুপাত হলো ৪০০:১। কিন্তু বাংলাদেশে এই অনুপাত বর্তমানে ৮২২: ১। আর বাংলাদেশ পুলিশের মোট জনবলের শতকরা ৭ ভাগ এখন নারী। ১৯৮৯ সন থেকে জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে অন্যান্য বাহিনীর পাশাপাশি বাংলাদেশ পুলিশের সদস্যরাও ধারাবাহিকভাবে অংশ নিচ্ছেন। মিশনে নারী পুলিশ যুক্ত হয়েছে ২০১০ সন থেকে। শান্তি মিশনে এ পর্যন্ত প্রায় ১০ হাজার পুলিশ সদস্য অংশ নিয়েছেন। বর্তমানে জাতিসংঘের নয়টি মিশনে ১ হাজারের বেশি পুলিশ সদস্য কাজ করছেন। এরমধ্যে নারী পুলিশ সদস্যের সংখ্যা তিন শতাধিক। আগে অধিকাংশ পুলিশ সদস্যের হাতে মানুষ লাঠি দেখতো। এখন লাঠি তুলে নিয়ে পুলিশ সদস্যের হাতে দেয়া হচ্ছে পদপর্যাদা অনুপাতে আগ্নেয়াস্ত্র। যে কারণে পুলিশ সদস্যরা এখন অনেক দক্ষতার পরিচয় দিতে পারছেন। রাজধানীর হোলি আর্টিজান হামলা তার দৃষ্টান্ত হতে পারে। পুলিশ অতিদক্ষতার সাথে সেই দিনের জঙ্গিহামলার ভয়াবহতম ঘটনাটি দমন করতে পেরেছিল।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন, যেকোনো মূল্যে দেশ থেকে জঙ্গি ও মাদক নির্মৃল করতে হবে।

দেশের মানুষকে রক্ষা করতে পুলিশসহ আইনশৃংখলা বাহিনী টেকনাফ, কক্সবাজারসহ সারাদেশে মাদকের বিরুদ্ধে সাড়াশি অভিযান শুরু করেছে। টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসা নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশের বিশেষ অভিযান চলছে। ইয়াবামুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আইনশৃংখলা বাহিনীর এই অভিযান চলবে। এক্ষেত্রে সকল শ্রেণিপেশার মানুষের সহযোগিতা প্রয়োজন। স্থানীয় মানুষের সহযোগিতা ছাড়া পুলিশ অথবা কোনো বাহিনীর একার পক্ষে মাদক নির্মূল করা সম্ভব নয়।
বাংলাদেশ পুলিশ আর্ন্তজাতিক পুলিশি সংস্থা-ইন্টারপোল এর সদস্য। পুলিশ সদর দপ্তরে আছে ইন্টারপোল ডেস্ক। এই ডেস্কের মাধ্যমে তথ্য বিনিময় ছাড়াও নানা ধরণের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা আছে। এর বাইরে বাংলাদেশ পুলিশে এখন ফরেনসিক, সাইবার ক্রাইম, মানি লন্ডারিং, পোস্ট ব্লাস্ট ইনভেস্টিগেশন, ক্রাইম সিন ইনভেস্টিগেশন, বেসিক ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন ও কম্পিউটারের ওপর প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে। এর ফলে পুলিশ অনেক আধুনিক ও দায়িত্বশীল। দিনদিন পুলিশকে মানবিক হতে বাধ্য করছে।
বাংলাদেশের পর্যটন জেলা কক্সবাজার। বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত, বিশ্বের দীর্ঘতম মেরিন ড্রাইভ, প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিনসহ উল্লেখযোগ্য দর্শণীয় স্থান সমূহের অবস্থানও কক্সবাজারে। প্রতিবছর অন্তত ২০-২৫ লাখ দেশিবিদেশি পর্যটক কক্সবাজারে ছুটে আসছেন প্রাকৃতির লীলাখেলা দর্শণে। তাঁরা মুগ্ধ হন সমুদ্রে উত্তাল রূপ আর সবুজ পাহাড়ের ঝরণা দেখে। স্থানীয় জনগণের পাশাপাশি পর্যটকেরাও দুইটা বিষয়ে হতাশ হন।
প্রথমটা মাদক চোরাচালান, আর দ্বিতীয়টা রোহিঙ্গা সমস্যা। ২০১৭ সালের ২৫ আগষ্টের পর মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের পাহাড়ে পালিয়ে আশ্রয় নিয়েছে প্রায় ৯ লাখের মতো রোহিঙ্গা জনগোষ্টি। আগে আসা রোহিঙ্গাসহ বর্তমানে উখিয়া ও টেকনাফের ৩০টি আশ্রয়শিবিরে থাকছে ১১ লাখ ১৯ হাজারের মতো রোহিঙ্গা। বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘মানবতার মা’ উপাধি পেয়েছেন। বিশ্বব্যাপী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বাংলাদেশ সরকারের ভাবমূর্তি বেড়েছে। বাংলাদেশ সরকার এখন রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের জোর প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাকে নিয়ন্ত্রণে পুলিশ বাহিনীকে হিমশিম খেতে হচ্ছে। আশ্রয়শিবির ছেড়ে পালানোর সময় ইতিমধ্যে কক্সবাজারের বিভিন্ন স্থান থেকে ৬০ হাজার ৫৩০ রোহিঙ্গা নারী-পুরুষকে আটক করে পুনরায় ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হয়েছে। এরমধ্যে ৩ হাজার ৭৪৩ জন রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়েছে চট্টগ্রাম, মানিকগঞ্জ, কুমিল্লা, যশোর, জয়পুরহাট, নওগাঁ, সাতক্ষীরা, চাঁদপুর, হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে। রোহিঙ্গা নারী-পুরুষদের ক্যাম্প থেকে পাচার ও নানা অপরাধের জড়িত ৫৬৬ জন দালালকে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে সাজা দেয়া হয়েছে। গত কয়েক মাসে পুলিশ জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে প্রায় সাত কোটি টাকার ইয়াবা। এসময় ৯০ জন মাদকব্যাবসায়ীকে গেস্খপ্তার করে পুলিশ। মাদক নির্মূল, অপরাধ দমনের পাশাপাশি ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্টির শান্তিশৃংখলা রক্ষায় পুলিশ সদস্যরা নিরলসভাবে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। কাজ করে যেতে হবে পুলিশকে। কারণ পুলিশ জনগনের বন্ধু।
আরেকটি ঘটনা দিয়েই প্রতিবেদনটা শেষ করতে চাই।
মর্মান্তিক এবং হৃদয়বিদাড়ক এই ঘটনাটা ১ বছর আগের। ২০১৮ সনের ৮ ফেব্রুয়ারি ভোররাতের ঘটনা এটি। টেকনাফের সাবরাং ইউনিয়নের খুরেরমুখ এলাকায় সেদিন ভোরে ডুবে গিয়েছিল রোহিঙ্গা বোঝাই একটি নৌকা। নৌকায় যাত্রী ছিল ৫৪ জন। স্থানীয় জেলেদের সহযোগিতায় সেদিন পুলিশ-বিজিবি সমুদ্রউপকূল থেকে একে একে উদ্ধার করেন ৫১ জন রোহিঙ্গা নারী পুরুষ শিশুকে। কিন্তু তিনটি শিশুকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। শিশু তিনটির বয়সও কম। বয়স মাত্র চার থেকে নয় মাস। দুধের তিন শিশুকে হারিয়ে মায়েরা সৈকতের বালুচরে হামাগুড়ি দিয়ে আকাশভাঙা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েছিলেন। পরিণতির জন্য তাঁরা মিয়ানমারের বর্বর সামরিকজান্তার ওপর অনবরত অভিশাপ দিয়ে যাচ্ছিলেন রোহিঙ্গারা মায়েরা। আর ক্ষণেক্ষনে আল্লাহকে ডাকছিলেন, যেন শিশু সন্তানগুলো জীবীত অবস্থায় ফিরে পান তাঁরা। অসহায় মা’দের দুরবস্থা সেদিন উপস্থিত অনেকের চোখে অশ্রু ঝরিয়েছিল। সেদিনও অন্য দশজনের মতো পুলিশ সদস্যরা নিরব থাকতে পারেনি। তাঁরা সমুদ্রে ঝাঁপ দিলেন। তল্লাশি চালিয়ে তাঁরা তুলে আনলেন তিন শিশু উন্মে সলিমা ( ৪ মাস), মো. আয়ূব ( ৭ মাস) ও আবদুল নবীকে ( ৯ মাস)।

লোকজনের সামনে মায়েরা সন্তানদের কুলে তুলে নিলেন। আদর করতে শুরু করেন শিশুর মুখমন্ডলসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে। এক সময় মা’দের আদর থেমে গেল। কান্নার বোলটা বাড়তে থাকে। মা’দের বিলাপের করুণ সূর উপস্থিত লোকজনের বুঝতে দেরী হয়নি-তিন শিশুর কেউ বেঁচে নেই।
উদ্ধার ৫১ রোহিঙ্গা নারী পুরুষকে গাড়িতে তুলে ক্যাম্পে দিকে রওয়ানা দিলেন বিজিবি সদস্যরা। তিন শিশুর লাশ পড়ে আছে বালুচরে। লাশের মালিক পুলিশ। কিছুক্ষণের মধ্যেই তিন শিশুর লাশ দাফনের কাজটিও করতে হবে পুলিশকে। কারণ পুলিশ জনগণেরই বন্ধু। মানুষের আবেগ-ভালোবাসা যেখানে শেষ হয়, পুলিশের প্রেম শুরু হয় সেখান থেকেই।

( লেখক : অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( প্রশাসন), কক্সবাজার )

আলোকিত প্রতিদিন/২ জুন’১৯/জেডএন

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন