স্থানীয়দের মারধরে আহত রাবি ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) গাছ থেকে লিচু পাড়তে যাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সাত শিক্ষার্থীকে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেছে স্থানীয়রা। মঙ্গলবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলের উত্তর দিকের কর্মকর্তাদের বাসভবন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা সবাই বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এদের মধ্যে গুরুতর আহত হয়েছেন মাহমুদুর রহমান কানন। তিনি রাবি ছাত্রলীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ও আইন বিভাগের ছাত্র।

মারধরের শিকার অন্যদের মধ্যে মেহেদী হাসান, ইমরান ও আকাশের নাম জানিয়েছে রাবি ছাত্রলীগের নেতারা। তারাও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী। তবে তাদের পুরো পরিচয় এখনও নিশ্চিত হওয়া যায় নি।

অপরদিকে, মারধরকারীদের নাম-পরিচয় কেউ স্পষ্ট করে জানাতে পারেনি। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছ থেকে গাছগুলো লিজ নিয়ে পাহারা দিচ্ছে বলে জানিয়েছে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের একজন কর্তাব্যক্তি নাম-পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে জানান, এবার গাছ লিজ দেওয়া হয়েছে ঠিক। তবে যারা লিজ নিয়েছে, তাদেরকে বলা হয়েছে- শিক্ষার্থীরা যদি কেউ খাওয়ার জন্য অল্প কিছু পাড়তে যায়, তবে যেন তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার না করা হয়।

রাবি ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদক সাব্বির হোসেন বলেন, সন্ধ্যার পরে বিষয়টি শুনে ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। সেখানে গিয়ে বিভিন্ন জনের সঙ্গে কথা বলে জেনেছি- ছাত্রলীগ নেতা কানন, মেহেদী, ইমরানসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭/৮ জন ছাত্র রোকেয়া হলের পাশে কর্মকর্তাদের কোয়ার্টার এলাকায় লিচু খেতে যায়।

তবে তারা লিচু পাড়তে গেলে, সেখানে থাকা স্থানীয়রা তাদেরকে বাধা দেয়। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে লাঠিসোঠা ও রড নিয়ে শিক্ষার্থীদের ওপর স্থানীয়রা হামলা করে। এতে ছাত্রলীগ নেতা ও আইন বিভাগের শিক্ষার্থী কাননের কাঁধে গুরুতর জখম হয়। অন্য বেশ কয়েকজনও আহত হয়েছে। তাদেরকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে রাবি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক গেছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ওদেরকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। এখানে ওদের চিকিৎসার বিষয় নিয়ে ব্যস্ত আছি। পরে বিস্তারিত জেনে এ ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।

আলোকিত প্রতিদিন/০৮ মে/আরএ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন