শ্রীপুরে অধ্যক্ষের ওপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা । প্রত্যাহারের দাবীতে শিক্ষার্থীদের মানবন্ধনে অংশ নিতে বাধ্য করার অভিযোগ

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের ওপর বহিরাগতদের হামলায় দায়ের হওয়া মামলায় হামলাকরীদের বাঁচাতে কোমলমতী শিক্ষার্থীদের ভুল তথ্য দিয়ে মানববন্ধন করোনো হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে শ্রীপুর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলী সরকারী কলেজের আহত ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নুরুন্নবী আকন্দ। একই কলেজের চার শিক্ষক রুহুল আমীন, আব্দুল হান্নান, মো. নূরুজ্জামান ও এটিএম আজহারুল ইসলাম শিক্ষার্থীদের মানববন্ধনে অংশ নিতে বাধ্য করে। তবে হামলাকারীরা কলেজের শিক্ষার্থী কিনা তার জবাব দিতে পারেননি মানববন্ধনে অংশ নেয়া শিক্ষার্থী ও অভিযুক্ত শিক্ষকবৃন্দ।

অধ্যক্ষর ওপর হামলার ঘটনায় বহিরাগত যুবলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার দাবীতে শিক্ষার্থীদের দিয়ে এ মানববন্ধন করানো হয়। বৃহষ্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে শ্রীপুর পৌর শহরের ডিবি রোডে শ্রীপুর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলী সরকারী কলেজের কিছুসংখ্যক শিক্ষার্থী এ মানববন্ধনে অংশ নেন।

প্রসঙ্গত, বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শ্রীপুর পৌর যুবলীগ কর্মী আশরাফুল আলম ওয়াসিমের নেতৃত্বে কমপক্ষে ১২ জন বহিরাগত কলেজ ক্যাম্পাসে প্রবেশ করে শ্রীপুর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলী সরকারী কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নূরুন্নবী আকন্দের ওপর হামলা করে আহত করে। ওই ঘটনায় বুধবার রাতেই ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শ্রীপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মানববন্ধনে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা জানায়, তারা যুবলীগ নেতা ওয়াসীমের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার চায়।

ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নূরুন্নবী আকন্দ জানান, ওই মামলায় তার কলেজের প্রায় পাঁচ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে একজন শিক্ষার্থীও অভিযুক্ত নেই। কিন্তু শিক্ষার্থীদেরকে ভুল তথ্য দিয়ে মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে বিদ্যালয় আঙিনা ছেড়ে রাস্তায় নামানো হয়েছে। এর সাথে তার কলেজের চার শিক্ষক রুহুল আমীন, আব্দুল হান্নান, মো. নূরুজ্জামান, এটিএম আজহারুল ইসলাম ও বহিরাগতরা জড়িত। তাকে কলেজে যাতায়াতে বাধা দিতে ওই শিক্ষকেরা তার বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় সাজানো তথ্যে সাধারণ ডায়েরী করে বাধা প্রদান ও প্রতিনিয়ত হুমকি প্রদান করছে। কলেজের শিক্ষকদেরকেও জিম্মি করে সকল শিক্ষকের প্রতি চরম অমানবিক আচরণ করা হচ্ছে। সাধারণ শিক্ষকেরা বহিরাহগতদের ভয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মানববন্ধনে যুবলীগ নেতা “ওয়াসীমের কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে” শ্লোগানে মুখরিত ছিল। এসময় শিক্ষার্থীদের কাছে মানববন্ধনের কারণ জানতে চাইলে তারা যুবলীগ নেতা ওয়াসীমকে বড় ভাই আখ্যা দিয়ে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা প্রত্যাহার দাবী করেন।

কলেজের শিক্ষক রুহুল আমীন সাংবাদিকদের বলেন, মানববন্ধনে কোনো শিক্ষার্থীকে পাঠানোর প্রশ্নই আসে না। ওয়াসীম কলেজের শিক্ষার্থী কি না প্রশ্নের জবাবে তিদনি বলেন, বহিরাগতরা কলেজে প্রবেশ করেছে কিনা তা তার জানা নেই।

শ্রীপুর থানার ওসি (তদন্ত) শেখ সাদী সাংবাদিকদের জানান, ১০/১৫ মিনিট পরই মানবন্ধণে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীদের সড়ক থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। মামলায় অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

আলোকিত প্রতিদিন/১৪ মার্চ/আরএ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন