লাদেনপুত্র হামজার নাগরিকত্ব বাতিল করেছে সৌদি আরব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: হামজা বিন লাদেনের নাগরিকত্ব বাতিল করেছে সৌদি আরব। হামজা আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী সংগঠন আল-কায়েদার প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত ওসামা বিন লাদেনের ছেলে।

হামজা বিন লাদেন আল-কায়েদার নেতৃত্বে আসছেন বলে তাঁকে ধরিয়ে দিতে ১০ লাখ ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। অন্যদিকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ হামজাকে কালো তালিকাভুক্ত করেছে। ফলে তাঁর ওপর ভ্রমণ ও অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপ হবে এবং তাঁর সম্পদ বাজেয়াপ্ত হবে।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে গতকাল শুক্রবার দেওয়া এক বিবৃতিতে হামজার নাগরিকত্ব বাতিলের খবর নিশ্চিত করে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, গত নভেম্বরে এক রাজকীয় আদেশে হামজা বিন লাদেনের নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়। তবে তা এখন প্রকাশ করা হলো।

এদিকে গত বৃহস্পতিবারই মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর জানায়, হামজা বিন লাদেনই সম্ভবত আল-কায়েদার হাল ধরতে যাচ্ছেন। এ কারণে হামজার খবরাখবর জানতে ১০ লাখ ডলারের পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছে। এর এক দিন পরই সৌদি আরব জানাল, হামজার নাগরিকত্ব বাতিল করা হয়েছে।

হামজা বিন লাদেনের বয়স ২৯ বছর। ২০১৭ সালেই হামজাকে ‘সন্ত্রাসী’ তকমা দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। বলা হচ্ছে, পশ্চিমা লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালাতে ইন্টারনেটে অডিও ও ভিডিও বার্তা ছেড়েছেন হামজা। মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর বলছে, ২০১১ সালে বাবার হত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার ঘোষণাও দিয়েছিলেন হামজা।

২০১১ সালে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে মার্কিন বাহিনীর চালানো এক সামরিক অভিযানে নিহত হন ওসামা বিন লাদেন। সেখানেই লুকিয়ে ছিলেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের টুইন টাওয়ারে বিমান দিয়ে হামলা চালানোর পর আলোচনায় আসেন আল-কায়েদার তৎকালীন প্রধান ওসামা বিন লাদেন। ওই সন্ত্রাসী হামলায় ৭০টি দেশের প্রায় তিন হাজার মানুষের মৃত্যু হয়।

আলোকিত প্রতিদিন/০৩ মার্চ/আরএ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন