হজমের সমস্যার স্থায়ী সমাধান দিতে পারে হজম উপযোগী খাবার

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করতে হতে হয় ওষুধের উপরেই নির্ভরশীল। কিন্তু খুব বেশি ওষুধ নির্ভর হয়ে পড়লে একটা সময়ে ওষুধ ছাড়া হজম করাই মুশকিল হয়ে পড়বে। এ ছাড়াও ঘন ঘন গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ নানারকম অসুখ ডেকে আনে। তাই সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষের ক্ষেত্রে স্বাভাবিক উপায়ে হজম ক্ষমতা বাড়ানো ও হজম উপযোগী খাবার খাওয়াই সমাধান।

খাবার খাওয়ার সময় কিছু স্বাস্থ্যকর খাদ্য ও কয়েকটি কৌশল মেনে চললেই হজমের সমস্যা কাটিয়ে উঠতে পারবেন সহজেই। চলুন জেনে নেয়া যাক-

সাধারণ চা না খেয়ে গ্রিন টি খান। হজম সংক্রান্ত সমস্যার স্থায়ী সমাধান দিতে পারে এই গ্রিন টি। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হজমের উৎসেচকগুলির কার্যকারিতা বাড়ায়। পরিপাকতন্ত্র সুস্থ রাখতে সহায়তা করে।

খাবার ভালো করে চিবিয়ে খান। খাবার ভালো করে চিবোলে তাতে নানা উৎসেচক যোগ হয়ে তাকে সহজপাচ্য করে তোলে।

যতটা সম্ভব ঝাল-তেল-মশলা এড়িয়ে চলুন। একান্তই ঝাল খেতে হলে কাঁচা মরিচের ঝাল খান। শুকনো মরিচ একেবারেই নয়। কাঁচা মরিচের ক্যাপসাইসিন হজমক্ষমতা বাড়ায়। তাই বলে একসঙ্গে অনেকখানি ঝাল খাবার খাবেন না।

খাবার পাতে শাক-সবজি ও সহজপাচ্য খাবারের পরিমাণ বাড়ান। একই সঙ্গে খাওয়া উচিত নয়, এমন বেশ কিছু খাবার আছে। সেগুলো মেনে চলুন। যেমন মাংস খেয়েই দুধ, ভাতের পরেই ফল, ভাজাভুজি খেয়েই পানি- এসব খাবেন না। এসব পরপর না খেয়ে একটু সময় রাখুন মাঝে।

প্রক্রিয়াজাত খাবার যতটা পারবেন এড়িয়ে চলুন। এসব খাবার টিনজাত করার সময় অনেক রাসায়নিক ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এসব প্রক্রিয়াজাত খাবারের কারণে হজমের সমস্যা পাশাপাশি পরিপাকতন্ত্র তার কর্মক্ষমতা হারায়।

আলোকিত প্রতিদিন/১০ জানুয়ারি/এমকে

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন