সুন্দর ত্বকে রাতের রূপচর্চা

ফাহিয়ান হামিম: গৃহিণীদের ব্যস্ততা শুরু হয়ে যায় সেই সাতসকালেই। আর কর্মজীবী নারীদের তো সারাদিন কাজ করে বাসায় ফিরেও যেন কাজের শেষ নেই , শিক্ষার্থীরাতো আরও ব্যস্ত, সারা দিনে নিজের দিকে একটু তাকানোর সুযোগটা কোথায়! প্রতিদিনের নিয়মিত পরিচর্যার কোটা তাই খালিই পড়ে থাকে। ফলাফল ত্বক-চুলের নানাবিধ সমস্যা, মুটিয়ে যাওয়া, দ্রুত বুড়িয়ে যাওয়া, আরও কত কিছু। কিন্তু রাতের বেলায় মাত্র ১০ মিনিট ত্বকের যত্ন নিলে দেখবেন ত্বকের নানা সমস্যা থেকে চিরকালের জন্য মুক্তি পেয়ে গিয়েছেন। স্কিন এক্সপার্টদের মতে রাতের বেলার যত্ন আমাদের ত্বকের ওপর সব চাইতে ভালো প্রভাব ফেলে। কারণ রাতে আমরা যত্ন নিলে তা সারারাত আমাদের ত্বকের ওপর কাজ করতে থাকে। এতে করে সব সময়েই
আমাদের ত্বক থাকে ভালো। তাই জেনে নেই রাতের রূপচর্চার কিছু বিশেষ টিপস….

১। সুন্দর ত্বকের মূলমন্ত্রই হলো পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা তাই রাতে ঘুমাতে যাবার আগে যতই ক্লান্ত থাকুন না কেন, মেকআপ অবশ্যই ভালোভাবে রিমুভ করতে হবে। হাত,পা ও মুখের ত্বক ভালোভাবে পরিষ্কার করতে হবে। কারণ, ত্বক পরিষ্কার থাকলে স্বাভাবিক কাজকর্ম ঠিক মতো হয় এবং ত্বক ভালোভাবে শ্বাস নিতে পারে।

২। রাতে চুল ভালোভাবে শুকিয়ে, চিরুনি দিয়ে আস্তে আস্তে চুলের জট ছাড়িয়ে চুল আঁচরে নেন। মেটালের চিরুনি ব্যবহার না করাই ভালো। চুল বড় হলে পনিটেল বা বিনুনি বেঁধে নিন। এর ফলে চুলে জট পড়বে না। তবে থুব টেনে টাইট করে চুল বাঁধবেন না।

৩। ঘুমাতে যাবার অন্তত দু’ঘণ্টা আগে রাতের খাবার খেয়ে নিন। অতিরিক্ত টেনশন বা স্ট্রেস নিয়ে ঘুমাতে গেলে ঘুম ভালো হয় না এবং ঘুম ভালো না হলে ত্বকে তার ছাপ পড়ে।

৪। যাদের ত্বক তৈলাক্ত ও ব্রণ আছে, তারা প্যাক ধুয়ে ফেলে ময়েশ্চারাইজারের বদলে ব্যবহার করুন অ্যাসট্রিনজেন্ট। ঘরোয়া অ্যাসট্রিনজেন্ট হলো গোলাপজল ও শশার রস। এগুলো ফ্রিজে রেখে ঠাণ্ডা করে নিলে আরও ভালো। শশার রস করে বরফ জমানোর পাত্রে রেখে আইস-কিউব করে নিতে পারেন। প্রতি রাতে রস বানানোর ঝামেলায় না গিয়ে একটি কিউব মুখে ঘষে নিন।

৫। চোখের ডার্ক সার্কেল কমাতে ঘুমানোর আগে কুরানো শশা বা আলু ঠাণ্ডা হলে ভালো বা ঠাণ্ডা টি-ব্যাগ চোখের উপর দিয়ে রাখুন ১০-১৫ মিনিট।

৬। রোজ রাতে শুতে যাবার আগে ঠোঁটে কোনো ময়েশ্চার বা লিপবাম লাগিয়ে নিন। নরম কাপড় দিয়ে ১মিনিট ঠোঁটে ঘষুন। তারপর গোলাপজল ও গ্লিসারিন একসঙ্গে মিশিয়ে লাগান। এর ফলে ঠোঁট কোমল ও মোলায়েম হবে।

৭। ঘুমাতে যাবার আগে হাত ও পায়েরও যত্ন নিতে হবে। নখের ওপর ময়েশ্চার ম্যাসাজ করুন। নখ মসৃণ হবে। হালকা গরম পানিতে হারবাল শ্যাম্পু মিশিয়ে পা বেশ কিছুক্ষণ ডুবিয়ে রাখুন। ভালো করে পামিস স্টোন দিয়ে পায়ের গোড়ালি ঘষে পরিষ্কার করতে পারলে ভালো। গোড়ালি, আঙুলের ফাঁকে, পায়ের পাতার নিচের অংশে ফুট লোশন দিয়ে ম্যাসাজ করুন।

ত্বক ও চুলের পরিচর্যায় নিয়মিত কিছুদিন নাইট কেয়ার রুটিন মেইনটেইন করে দেখুন, তফাৎটা নিজেই বুঝতে পারবেন।

 

আলোকিত প্রতিদিন/২০ নভেম্বর/আরএ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন