বিষাদে ছুঁয়েছে মন

শারমিন মৌ : আজকাল মন ভালো নেই একটি সংক্রামক ব্যাধি রোগ হয়ে গেছে । যে কোন প্রিয় জিনিষের প্রতিই কেন যেন প্রবল বিতৃষ্ণা ধরেছে আমার। মন ভালো নেই এটা হলেই একাকিত্ব ঘিরে থাকতো অামায় অন্ধকার ঘরে। নিজেকে নিবার্সন দেয় হত নিজের অজান্তে । মন ভালো না থাকাটা একসময় ছিল অকল্পনীয়। কিন্তু সময়ের প্রবর্তনে তা হয়ে যায় ভিন্ন। মানুষ যা ভাবে অার যা করে তার দুই এর মাঝে মিল অাছে কত তা অামাকে ভাবিয়ে তোলে।

মনকে দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলে এই মন খারাপ নামক জিনিসটা । তিনটি বিভিন্ন রঙের (সবুজ, নীল ও লাল) মাধ্যমে অনুভূতির সৃষ্টি হয়। যা মানুষের চোখের রেটিনার সাথে সংযুক্ত তিন ধরনের স্নায়ুর কর্ম-তৎপরতার ফলে এমনটা ঘটে বিজ্ঞানীদের মতে । সন্তানের প্রতি মনোযোগ ও লক্ষ্য রাখার কাজটিও গুরুত্বের সঙ্গে করতে হবে। আপনার ছেলে বা মেয়ে কোথায় যায়, কি করে, সেটা আগে-ভাগে জেনে সতর্ক হতে না পারলে বিপদই নেমে আসবে। খেয়াল রাখতে হবে শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের দিকেও ।

বাংলা সাহিত্যের জনপ্রিয় কবি সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের চম‍ৎকার কিছু লাইন আছে: মন ভালো নেই কেউ তা বোঝে না সকলি গোপন মুখে ছায়া নেই/চোখ খোলা তবু চোখ বুজে আছি কেউ তা দেখেনি। কবিতা ও সাহিত্যের এমন রোমান্টিক ভাবালুতা যদি বাস্তব জীবনে চলে আসে, আপনার ঘরের ছেলে-মেয়েদের মধ্যে সঞ্চারিত হয়, তখন কিন্তু চরম বিপদ।

শরীর ও মনকে ভালো রাখতে খাদ্য, পুষ্টি, পরিবেশ, ব্যায়াম, বিশ্রাম দিয়ে এবং প্রকৃতি ও সুন্দরের দিকে ধাবিত হয়ে বছরের প্রতিটি দিনকেই ভরিয়ে তুলতে হবে। তবেই নতুন প্রজন্ম পাবে অাগামির উন্নত ও সমৃদ্ধ ভবিষ্যৎ।

 

আলোকিত প্রতিদিন/১৭ নভেম্বর/এমএস

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন