মৃত্যু ঝুঁকিতে গোপালগঞ্জের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

গোপালগঞ্জ সংবাদদাতা: যে হাসপাতালে রোগী ভর্তি হন জীবন বাঁচাতে, সেই হাসপাতালের ছাদ ভেঙে পড়ছে। আর তাই জীবন বাঁচাতে এসে বর্তমানে মৃত্যু ঝুঁকিতে রোগী ও স্বজনরা থাকছেন তটস্থ। তারপরও এক প্রকার বাধ্য হয়েই সাধারণ মানুষ সেখানে অবস্থান করে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করছেন।

হাসপাতাল ভবনের দ্বিতীয় তলায় মহিলা ও পুরুষ ওয়ার্ডের প্রবেশ দ্বারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নোটিশ টাঙিয়ে দিয়েছে। সেখানে লেখা আছে এ ওয়ার্ডের ছাঁদ ভেঙ্গে পড়তেছে, এখানে থাকলে নিজ দায়িত্বে থাকবেন। তারপরও নিজ নিজ দায়িত্বে রোগীরা সেখানে থাকছেন। নিচ্ছেন চিকিৎসা সেবা। চিকিৎসক ও নার্সরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এ হাসপাতালে কাজ করে যাচ্ছেন। এ ছাড়া চিকিৎসক সংকটে গত ৭ মাস ধরে এ হাসপাতালে অপারেশন বন্ধ রয়েছে।

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বর্তমানে এ অবস্থা বিরাজ করছে দীর্ঘ দিন যাবত। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, কোটালীপাড়া উপজেলার সাড়ে ৩ লাখ মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিতে ৪০ বছর আগে ৩১ বেডের এ হাসপাতাল ভবন নির্মাণ করা হয়। হাসপাতাল ভবনটি এখন জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ। দ্বিতীয় তলা ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সেখানে ছাদের আস্তর, ঢালাই, ভিমের ঢালাই খসে পড়ছে। ছাদের রড বেরিয়ে গেছে। অনেক সময় আস্তর খসে পড়ে প্রতি নিয়ত রোগী, নার্স ও চিকিৎসকরা আহত হচ্ছেন। এ কারণে হাসাপাতাল কর্তৃপক্ষ মহিলা ও পুরুষ ওয়ার্ডের প্রবেশ দ্বারে সতর্কতা নোটিশ টাঙিয়ে দিয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র আরো জানিয়েছে, ৩১ বেডের এ হাসপাতালটিকে ৫০ বেডে উন্নীত করা হয়েছে। কিন্তু এখানে জনবল রয়েছে ৩১ বেডের। ২২ জন চিকিৎসকের স্থলে কর্মরত রয়েছেন মাত্র ৯ জন চিকিৎসক। গত ৭ মাস ধরে গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া বিশেষজ্ঞ নেই। এ কারণে বন্ধ রয়েছে অপারেশন।

কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স জ্যাকলিন রুনু বৈদ্য বলেন, ‘কিছু দিন আগে ছাদের আস্তর খসে পায়ে পড়ে আমি আহত হয়েছি। আমাদের বসার রুমের ছাদের অবস্থা ভালো নয়। ঝুঁকির মধ্যে দায়িত্ব পালন করে যেতে হচ্ছে। কখনো কখনো ছাদের পলেস্তারা খসে চিকিৎসক ও রোগীরা আহত হচ্ছেন।’

কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল বলেন, ‘প্রকৌশল বিভাগ অনেক আগেই এ ভবন পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে। আমরা এখানে রোগী রাখতে চাই না। রোগীরা জোর করে এখানে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা সেবা নেন। তাই আমরাও সতর্কতা মূলক নোটিশ টাঙিয়ে দিয়েছি। ৩ মাসের মধ্যে হাসপতালের এ ভবন ভেঙে নতুন আধুনিক ভবন নির্মাণ কাজ শুরুর প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখানে চিকিৎসক সংকট প্রকট। ৭ মাস ধরে হাসপাতালে গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া বিশেষজ্ঞ নেই। তাই অপারেশন বন্ধ রয়েছে। চিকিৎসক সংকটের মধ্যেও প্রতিদিন ৩/৪ শ রোগীকে আমরা চিকিৎসা সেবা দিয়ে যাচ্ছি।’

আলোকিত প্রতিদিন/১৫নভেম্বর/আরএইচ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন