আশুলিয়ায় বাস থেকে বাবাকে ফেলে মেয়েকে হত্যা

আশুলিয়া প্রতিনিধি: আশুলিয়ায় চলন্ত বাস থেকে বাবাকে মারধর করে ফেলে দিয়ে মেয়ে জরিনা খাতুনকে হত্যা করে ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে এঘটনায় বাস বা জড়িত কাউকে এখনও আটক করতে পারেনি।

শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বাইপাইল-আবদুল্লাহপুর মহাসড়কের আশুলিয়ার মরাগাঙ্গ এলাকা থেকে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। নিহতের নাম জরিনা খাতুন। তিনি সিরাজগঞ্জের চৌহালী থানার খাস কাওলীয়া গ্রামের আকবর আলীর মেয়ে।

নিহতের বাবা আকবর আলী জানান, শুক্রবার সকালে আমিও আমার মেয়ে জরিনা খাতুনকে সঙ্গে নিয়ে আশুলিয়ার গাজিরচট এলাকায় তার নাতনীর বাসায় বেড়াতে আসি। সন্ধ্যার পর মেয়ের জামাইবাড়ী টাঙ্গাইল যাওয়ার উদ্দেশ্যে সাভারের আশুলিয়ার ইউনিক থেকে টাঙ্গাইলগামী বাসে উঠেন আমিও আমার মেয়ে। তবে বাসটি টাঙ্গাইল না গিয়ে কয়েক ঘন্টা বিভিন্ন স্থান ঘুরে আবার আশুলিয়ার দিকে চলে আসে। পরে বাসটি আশুলিয়ার মরাগাঙ্গ এলাকায় পৌছালে নিহতের বাবাকে মারধর করে মোবাইল ফোন টাকা পয়সা ছিনিয়ে নিয়ে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেয় দুর্বৃত্তরা। এসময় আহত অবস্থায় স্থানীয়দের সহযোগীতায় নিহতের বাবা টহল পুলিশকে ঘটনাটি জানালে তারা প্রায় দুই কিলোমিটার সামনে গিয়ে মহাসড়কের পাশ থেকে মেয়ে জরিনা খাতুনের মরদেহ দেখতে পায়।

এব্যাপারে আশুলিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (ওসি তদন্ত) জাবেদ মাসুদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, খবর পেয়ে নিহতের মরদেহটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। পরে ময়না তদন্তে জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ এ্যান্ড হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের মেয়ের জামাই নুর ইসলাম বাদী হয়ে বাসের চালক, হেলপারসহ অজ্ঞাতদের আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এছাড়া বাস ও ঘটনায় জড়িতদের আটকের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

আলোকিত প্রতিদিন/১০ নভেম্বর/আরএ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন