ঢাবি ক্যাম্পাসে মাদক-বিরোধী অভিযান শুরু করেছে ছাত্রলীগ

বিশেষ প্রতিবেদক: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও পুলিশদের সহায়তায় ঢাবি ক্যাম্পাসে শুরু হয়েছে মাদক বিরোধী অভিযান। এ অভিযানে ছাত্রলীগের পাশাপাশি একাত্মতা ঘোষণা করেছে ক্যাম্পাসের অন্যান্য শিক্ষার্থীরাও। মাদক নিয়ে কয়েকদিন আগে ঢাবি-বুয়েট সংঘর্ষের পর এরকম অভিযানে নামে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

সন্ধ্যা পর থেকেই টিএসসির আশেপাশে গাঁজাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য বিক্রি সকলের চোখে পরার মতো। ৭ তারিখে রাত এগারোটায় সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায় ছবির হাট, টিএসসি গেট, বাংলা একাডেমীর সামনে, আইন অনুষদ, শহীদ মিনার, জগন্নাথ হল গেট, এবং রাস্তার পাশে অবাধে বেচা কেনা হচ্ছে মাদকদ্রব্য। চা-পান বিক্রেতা, ভিক্ষুক, রিক্সাওয়ালা একএকজন একেক বেসে মাদকদ্রব্য বিক্রি করছে। এখান থেকে মাদকদ্রব্য কিনে মাদকাসক্ত ছাত্র এবং তাদের সহযোগীয় বহিরাগতদেরকে ক্যাম্পাস ও এর আশেপাশের রাস্তায় প্রকাশ্যে এসব সেবন করতে দেখা যায়।

এই সময় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ- সম্পাদক মুরাদুত জামান মুরাদ, উপছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক রোস্তম আলীর নেতৃত্বে একজনকে ধাওয়া করলে তারা সকলেই পালিয়ে যায়। তাদের সাথে অভিযানে যোগ দেন টিএসসিতে রাত্রে ডিউটিতে থাকা শাহবাগ থানার এস আই জাহাঙ্গীর। এরপর অভিযান চলাকালে সব মাদক বিক্রেতা ও বহিরাগতরা ক্যাম্পাস থেকে পালিয়ে যায়।

এস আই জাহাঙ্গীর এই প্রতিবেদককে বলেন, ছাত্রদের সহায়তা থাকলে ক্যাম্পাসে সুষ্ঠু পরিবেশ ফিরিয়ে আনা কষ্টকর নয়। এখানে মাদকসেবনকারীর অধিকাংশ ছাত্র হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে সরাসরি অ্যাকশন নেওয়া যায় না। সাধারণ ছাত্রদের সমর্থনে আমাদের এই অভিযান চলবে।

বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক মুরাদুত জামান মুরাদ বলেন, মাদকের সরবরাহ এবং পর্যাপ্ততা কমিয়ে আনা সম্ভব হলে ক্যাম্পাসের পরিবেশ আরো ভালো হয়ে উঠবে। এসব বিক্রির সাথে যেসব সিণ্ডিকেট, ছাত্র জড়িত থাকুক না কেন, তাদের কাওকেই ছাড় দেওয়া হবে না। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এরকম উদ্যোগে সবসময় সাধারণ ছাত্রদের পাশে থাকবে এবং প্রশাসনকে সহায়তা করবে।

বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপছাত্রবৃত্তি বিষয়ক সম্পাদক রোস্তম আলী বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সবসময় মাদকের বিরুদ্ধে। ছাত্রলীগ কখনো মাদকের সাথে আপোস করে নি, করবেও না। আমরা মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করেছি। মাদকসেবী ও বিক্রেতা যত বড়ই হোক না কেন তাদের আইনের আওতায় আনতে ছাত্রলীগ বদ্ধ পরিকর। এই অভিযানে উপস্থিত সাধারণ ছাত্ররা ছাত্রলীগের এমন উদ্যোগে সন্তোষ প্রকাশ করেছে।

রায়ান নূর
আলোকিত প্রতিদিন/ ৮নভেম্বর/আরএইচ

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন