সিদ্দিকুর নয়, চোখ হারিয়েছি আমরা…

সবাই এখন ব্যস্ত রাজনীতির আলোচনায়, কে কোন পদে যেতে চান কিভাবে সেটি পাবেন সেই হিসেবের খাতা খুলে সেটি মেলাচ্ছেন কেউ কেউ, কেউবা মাথা ব্যথায় ভুগছেন খালেদা জিয়ার লন্ডন সফর নিয়ে, নির্বাচনের রাজনীতিতে প্রতিদিন যুক্ত হচ্ছে নতুন মুখ, হালের খবর মিডিয়া জগতের মিথিলা-তাহসানের ডিভোর্স অনেকের জন্যই আলোচনার নতুন খানাখন্দ দিয়েছে, গত সপ্তাহ পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ব্যস্ত ছিল একই বিভাগের দুইজন শিক্ষকের মামলা নিয়ে, এতো এতো গুরুত্বপূর্ণ আলোচনার ভীড়ে চোখ হারানো সিদ্দিকুর

জায়গা পাননি আলোচনার টেবিলে। ফেসবুকে কয়েকজন চোখে মারাত্মক আঘাতপ্রাপ্ত সিদ্দিকুরের ছবিসহ আর্তি প্রচার করলেও তাতে লোকজন খুব বেশি ঘাড় ঘুরিয়েছে সেই ছবির দিকে তেমনটি মনে হয়নি। কারণ তিনি সেলিব্রেটি নন, ঢাকা বিশ্বব্যিালয়ের শিক্ষক নয়, কোন রাজনৈতিক নেতাও নন। তবে নির্মম সত্য হলো যে সিদ্দিকুর চোখ বাঁচাতে লড়ছে, লড়ছে আসলে জীবন নিয়ে, জীবনের পরিণতি নিয়ে। এই কয়েকদিন আগেও স্বপ্নবাজ যে ছেলেটি দু’চোখ ভরে দুনিয়া দেখতো, দ্রুত পরীক্ষা পাস করে একটি চাকরির স্বপ্ন বুনতো, সে আর এখন সে স্বপ্ন থেকে অনেক দূরে। দুনিয়া তাকে দেখিয়েছে ভিন্ন জিনিস। খুব বেশি জোরালোভাবে আমাদের মনে না দাগ কাটলেও আমরা জেনে গেছি রাজধানীর শাহবাগে ছাত্র ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় আহত সরকারি তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী সিদ্দিকুর রহমানের দু’চোখ ফেটে গেছে। এখন আর ভবিষতের জ্বলজ্বলে স্বপ্ন নয়, শুধু চোখে পৃথিবী দেখার স্বপ্নের মধ্যেই বাধা পড়েছে শিক্ষার্থী সিদ্দিকুরের জীবন।
সংবাদপত্রের রিপোর্ট অনুযায়ী পরীক্ষার রুটিন ও তারিখ ঘোষণাসহ কয়েকটি দাবিতে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনের রাস্তায় অবস্থান নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়া ৭ সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা। পৃথিবীতে সম্ভবত এই প্রথম কোনও দেশে শিক্ষার্থীরা রুটিন ও পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার জন্য আন্দোলনে পথে নেমেছিলো। আর এই অধিভুক্ত হওয়া সাতটি কলেজ হলো- ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ, কবি নজরুল ইসলাম কলেজ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ ও মিরপুর বাংলা কলেজ। মাস ছয়েক আগে এই কলেজগুলো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত হয়। সেদিন বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শাহবাগ ছেড়ে যেতে বলে পুলিশ। এরপর শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুটওভার ব্রিজের পাশের অংশে অবস্থান নেন। এসময় তাদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ লাঠিচার্জ করে ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে। এতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আহত হন। এই শিক্ষার্থীদের মধ্যে গুরুতর আহত একজনই হলেন সিদ্দিকুর।

এই ধরনের পরিস্থিতির প্রেক্ষাপট কী? কেন শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে নামতে হলো সেটি অন্তত শিক্ষক হিসেবে আমার কাছে বড় প্রশ্ন। কেনইবা সেদিন সেই আন্দোলন দমাতে পুলিশকে গুলি ছুড়তে হলো? আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা কি পুলিশের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিলো? কোনও পুলিশকে আঘাত করেছিল? তারা গাড়ি ভাঙচুর করছিলো? রাস্তা-ঘাট বন্ধ রেখেছিল? বোমা মেরেছিলো? কোনও মানুষ কি অকারণে আক্রমণ কিংবা নিপীড়ন করছিল? তাদের প্রতি সমর্থন আদায় করতে কাউকে বাধ্য করেছিল? তাদের দিক থেকে কোনও বড় ধরনের হামলার আভাস পেয়েছিলো পুলিশ? তাদের মধ্যে কি সহিংস তৎপরতা ছিল? তারা কোনও সরকারি সম্পত্তি নষ্ট করেছিল? না… অন্তত সেদিনের টিভি ফুটেজে সেই রকম কিছু দেখা যায়নি। তাহলে কেন এই রকম দমন নিপীড়ন করা হলো এবং একজন শিক্ষার্থীর চোখের আলো নিভে দেওয়ার ব্যবস্থা হলো?

বাংলাদেশের এক কৃষক পরিবারের লড়িয়ে জীবনের অধিকারী সিদ্দিকুর। ভেবেছিলেন তাড়াতাড়ি পড়ালেখা শেষ করে একটি চাকরি নিয়ে পরিবারে হাল ধরবেন, পরিবারকে বাঁচাবেন নিজেও বাঁচবেন। কিন্ত স্বপ্ন অনেক সময়ই উল্টে যায়, জীবনকে পরিহাস করে স্বপ্ন দেখাকে উপেক্ষা করে। স্বপ্ন ফেরী করা সিদ্দিকুর এখন অনেকটাই পরিবারের বোঝা হয়ে যাচ্ছেন। কারণ চিকিৎসকরা ইতোমধ্যেই জানিয়ে দিয়েছেন, সিদ্দিকুরের একটি চোখ অকেজো, আরেকটি চোখেও অস্ত্রপচার চলছে। প্রায় চোখের আলো হারনো এখন সিদ্দিকুর তার চোখের আলো ফেরত চাচ্ছেন শুধু। আর এই চাওয়ার মধ্য দিয়ে আর কোনও চাওয়ার প্রতি অনাগ্রহতাও জানান দিচ্ছেন। এক অধিকারের লড়াই তার জীবন পাওয়ার অধিকারের পথ বন্ধ করে দিয়েছে।

কোনও অর্থেই সিদ্দিকুরের কোনও দোষ ছিল না। জন্মগত অধিকারের বোধটিকে সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিলো আন্দোলনে। ভালোভাবে শিক্ষা শেষ করা একজন শিক্ষার্থী হিসেবে তার মৌলিক অধিকার। কিন্তু সেটি শেষ পর্যন্ত চোখ হারানোর জমিন হিসেবে তার জীবনে গেঁথে থাকবে- নিঃসন্দেহে এটি তার কোনোভাবেই মাথায় আসেনি।

সিদ্দিকুরের চোখ নষ্ট হয়েছে, তাতেও ক্ষোভ কমেনি পুলিশ প্রশাসনের। তারা মামলা দিয়েছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে। শিক্ষার্থীরা নতুন দফা নিয়ে আবারও আন্দোলনে। তাদের দাবি সরকার যেন সিদ্দিকুরের চোখের চিকিৎসার দায়িত্ব নেন এবং শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে করা মামলা যেন প্রত্যাহার করেন। আমরাও সেই দাবির সাথে একমত। শিক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট প্রত্যেকটি আন্দোলই শিক্ষা আন্দোলনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটিকে দমিয়ে নিপীড়ন চালিয়ে কখনও শিক্ষা ব্যবস্থার অগ্রগতি বা পরিবর্তন কোনও সময়ই সম্ভব নয়। সিদ্দিকুরের হারিয়ে যাওয়া চোখ আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার অন্ধত্বকেই প্রকাশ করেছে।

সিদ্দিকুরের চোখ আলো হারিয়ে যাওয়া আমাদের স্বপ্ন দেখারে সাহসকে চুরমার করে দেয়…আমরা স্বপ্ন দেখতে ভয় পেতে শিখি এমনকী দুঃস্বপ্ন দেখতেও… আর আমরা এই ভাবেই জীবিত থাকতেও এক একজন মৃত মানুষ হয়ে যাই… আমাদের চোখ হারায় স্বপ্নরা মরে যায়… আর আমরা বেশিরভাগই চোখের আলো নিয়েও দৃষ্টিহীন মৃত মানুষ হিসেবেই বেঁচে থাকি… কারণ সিদ্দিকুরের চোখ হারায় না চোখ হারাচ্ছি আমরা… কারণ আমরা যেটি দেখার কথা তা দেখতে পাইনা…

লেখক: জোবাইদা নাসরীন,শিক্ষক, নৃবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।
ইমেইল: zobaidanasreen@gmail.com

তথ্যসূত্রঃবাংলা ট্রিউবিউন অনলাইন

ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *