জয়িতা পুরস্কারে ভূষিত হলেন নারীনেত্রী ও উদ্যোক্তা হাসিনা আক্তার রিটা

মোহাঃ আবু সায়েম: অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখায় কক্সবাজার জেলা ও উপজেলায় জয়িতা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন নারীনেত্রী ও সফল নারী উদ্যোক্তা হাসিনা আক্তার রিটা।  ৯ ডিসেম্বর কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের শহীদ এটিএম জাফর আলম সিএসপি সম্মেলন কক্ষে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তর কর্তৃক যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে জেলাও উপজেলায় অর্থনৈতিকভাবে ব্যাপক অবদান রাখায় এ পুরস্কার প্রদান করা হয়।উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোহাঃ কামাল হোসেন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি কানিজ ফাতেমা মোস্তাক।

এসময়,অর্থনৈতিকভাবে ব্যাপক অবদান, শিক্ষা ও চাকুরী ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারী, সফল জননী নারী,নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন যে নারী এবং সমাজ উন্নয়নে অবদান রেখেছেন যে নারীসহ মোট ৫ ক্যাটাগরিতে অর্থনৈতিকভাবে ব্যাপক অবদান রাখায় জয়ীতা পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন হাসিনা আক্তার রিটা।কক্সবাজার জেলা প্রশাসক, মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ- পরিচালক ও সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি নারীনেত্রী, সফল নারী উদ্যোক্তা হাসিনা আক্তার রিটাকে জেলা ও উপজেলায় অর্থনৈতিক উন্নয়নে ব্যাপক অবদান রাখায় ক্রেস্ট ও সম্মাননাস্বারক দিয়ে পুরস্কৃত করেন।হাসিনা আক্তার রিটা একাধারে একজন সফল নারীনেত্রী ও একজন চৌকস দক্ষ উদ্যোক্তা। তিনি কক্সবাজার শহরের হাসাপাতাল সড়কের বাসিন্দা। তারঁ বাবা মরহুম ইদ্রিস আহমদ ছিলেন একজন মুক্তিযুদ্ধা।স্বাধীন বাংলাদেশ সৃষ্টিতে যার অবদান প্রত্যক্ষভাবে জড়িত তাঁরই একজন সফল কন্যা শিক্ষিত ও বহুগুণে গুণান্বিত একজন আদর্শ নারী হচ্ছেন হাসিনা আক্তার রিটা। একজন মুক্তিযুদ্ধার সন্তান হিসেবে সৃজনশীল কার্যক্রমের বাস্তবিক গুণাবলি রয়েছে তার মধ্যে। সুতরাং জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে অর্থনৈতিক উন্নয়নে জয়ীতা পুরস্কার ভূষিত হওয়া তার মেধা, প্রজ্ঞা শ্রম এবং সৃজনশীলতার বহিঃপ্রকাশ। তাঁর স্বামী মোহাম্মদ আলমগীর কক্সবাজার শহরের একজন সফল বিশিষ্ট ব্যবসায়ী।হাসিনা আক্তার রিটা কক্সবাজার শহরের খুরুশকুলে অবস্থিত হাসিনা এ্যাগ্রো ফার্মের একজন সফল উদ্যোক্তা ও মালিক।তিনিই কক্সবাজার জেলা যুব মহিলা আওয়ামিলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদিকার দায়িত্ব পালন করছেন।
পুরস্কার পাওয়ায় এক প্রতিক্রিয়ায় হাসিনা আক্তার রিটা বলেন,প্রতিটি পুরস্কার খুবই ভালো লাগে। কাজের গতিকে তরান্বিত করে এবং সামাজিক, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব বোধ আরো বাড়িয়ে দেয়।তিনি আরো বলেন,কক্সবাজার জেলা প্রশাসন ও মহিলা শিশু বিষয়ক অধিদপ্তর কর্তৃক আয়োজিত জেলা ও উপজেলায় অর্থনৈতিকভাবে অবদান রাখায় আমাকে জয়ীতা পুরস্কার প্রদান করায় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি।ভবিষ্যতে যাতে সফলতার এ ধারা অব্যাহত রাখতে পারি সকলের নিকট আন্তরিকভাবে দোয়া কামনা করছি।

 

 

 

আলোকিত প্রতিদিন/৯ ডিসেম্বর/আসাদ

এই সংবাদ ৩৬ বার পঠিত।
ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন
%d bloggers like this: