মেঘনায় অবৈধ বালু উত্তোলনে বাঁধা দেওয়ায় গ্রামবাসির উপর হামলা আহত-৫, ৪ ড্রেজার আটক | আলোকিত প্রতিদিন

মেঘনায় অবৈধ বালু উত্তোলনে বাঁধা দেওয়ায় গ্রামবাসির উপর হামলা আহত-৫, ৪ ড্রেজার আটক

এরশাদ হুসাইন অন্য, সোনারগাঁ: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলার নদী বেষ্টিত নুনেরটেক এলাকায় মেঘনা নদীতে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বাঁধা দেওয়ায় গ্রামবাসীর উপর হামলা করেছে বালু সন্ত্রাসীরা। মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বালু সন্ত্রাসীদের হামলায় টেঁটাবিদ্ধসহ ৫ গ্রামবাসী আহত হয়েছে। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মেঘনা নদীতে উত্তেজনা চলছে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের সময় বিকেলে সোনারগাঁ থানা পুলিশ ৪ ড্রেজার আটক করে নিয়ে আসে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।
জানা যায়, উপজেলার বারদী ইউনিয়নের মেঘনা নুনেরটেক বালু মহলটি হাইকোর্ট স্থানীয় ভাবে ইজারা দেয়া নিষেধাজ্ঞা জারি করে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ফলে ওই এলাকায় কয়েকটি গ্রাম নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যায়। পাশর্^বর্তী মেঘনা উপজেলার চালিভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ সরকারের সহযোগী মানিক মিয়া, মনোয়ার হোসেন মনা, শাহপরান, আনোয়ার হোসেন, জাহাঙ্গীর ও মোশারফ দীর্ঘদিন ধরে নুনেরটেক বালু মহাল অবৈধভাবে ২০-২৫টি ড্রেজারের মাধ্যমে লাখ লাখ ঘনফুট বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে। বালু উত্তোলনের ফলে নুরেরটেক এলাকার রঘুভাঙ্গা এলাকায় নতুন করে গ্রাম ভাঙ্গনের সৃষ্টি হচ্ছে। মঙ্গলবার ভোরে ড্রেজারের মাধ্যমে নুনেরটেক এলাকায় বালু উত্তোলন করতে গেলে গ্রামবাসী একত্রিত হয়ে লাঠিসোটা নিয়ে ধাওয়া করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বালু সন্ত্রাসীরা আগ্নোয়াস্ত্র, টেঁটা, বল্লম, লাঠিসোটা ও ইটপাটকেলসহ আরো লোকজন নিয়ে পুনরায় বালু উত্তোলন করতে আসে। পরে গ্রামবাসী ধাওয়া করতে গেলে বালু সন্ত্রাসীদের ছুড়া টেঁটায় নুনেরটেক রঘুনার চর গ্রামের ইমামউদ্দিনের ছেলে দিলবর হোসেন(৪৫) আহত হয়। এছাড়াও জুয়েল, সাদ্দাম, আমজাদ ও আবুল হোসেন আহত হয়। আহতদের সোনারগাঁ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় মেঘনা নদীতে উত্তেজনা চলছে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের সময় বিকেলে সোনারগাঁ থানা পুলিশ এমভি মাতাব্বর ড্রেজিং, মা বাবার দোয়া,এমভি জিন্নাত ও এশিয়া সুপার নামের ৪ ড্রেজার আটক করে নিয়ে আসে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। নুনেরটেক গ্রামের আবুল হাসেম জানান, হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা থাকার পরও চালিভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ সরকারের লোকজন অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে। গ্রামবাসী তাদের প্রতিহত করার জন্য ধাওয়া দিলে বালু সন্ত্রাসীরা পিস্তুল, টেঁটা ও বল্লম ও লাঠিসোটা নিয়ে গ্রামবাসীর উপর হামলা করে। এতে ৫ গ্রামবাসী আহত হয়। অভিযুক্ত চালিভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ সরকারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। সোনারগাঁ থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের খবর পেয়ে মেঘনা নদীতে অভিযান চালিয়ে ৪ ড্রেজার আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার বলেন, নুনেরটেক বালু মহালে কোন অবস্থায়ই অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করতে দেওয়া হবে না। প্রয়োজনে নিয়মিত মেঘনা নদীতে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

 

 

 

আলোকিত প্রতিদিন/১৯ নভেম্বর/আসাদ

এই সংবাদ ৩০ বার পঠিত।
ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন