রাত পোহালেই ভয়াল ভোর ।  মিজানুর রহমান (লিটন) | আলোকিত প্রতিদিন

রাত পোহালেই ভয়াল ভোর ।  মিজানুর রহমান (লিটন)

Spread the love

রাত পোহালেই ভয়াল ভোর  
মিজানুর রহমান (লিটন)

১৯৭৫ সালের এ দিনটি বাঙালি জাতির জন্য অত্যন্ত লজ্জার এবং ঘৃণার। ইতিহাসের বেদনাবিধুর ও বিভীষিকাময় এই কালো দিনটি বাংলার মানুষকে এখনও কাঁদায়। বাঙালি জাতি হারিয়েছে ইতিহাসের শ্রেষ্ঠ সন্তান, স্বাধীনতার মহান স্থপতি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী মুক্তি কালীন সময়ের আপোষহীন অগ্রনায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। জাতির পিতাকে হারানোর দুঃসহ বেদনা জাতি আজও বিনম্র চিত্তে স্মরন করে। ১৯৭৫ সালের এই দিনেই অতিপ্রত্যুষে ঘটেছিল ইতিহাসের সেই কলঙ্কজনক ঘটনা। সপরিবারে নির্মমভাবে হত্যার শিকার হয়েছিলেন জাতির জনক ছাড়াও আরও ১৫ জন। নৃশংস এই হত্যা কান্ডে বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এবং শিশু পুত্র শেখ রাসেলও রেহাই পাননি।

স্বাধীন দেশে কোনো বাঙালি তার নিরাপত্তার জন্য হুমকি হতে পারে না, এমন দৃঢ়বিশ্বাস ছিল বঙ্গবন্ধুর। সেজন্যই সরকারি বাসভবনের পরিবর্তে তিনি থাকতেন তাঁর প্রিয় ঐতিহাসিক ৩২ নম্বর ধানমন্ডির অপরিসর নিজ বাসভবনেই। বাঙালির স্বাধিকার-স্বাধীনতা আন্দোলনের সূতিকাগার এ বাড়িটি অসম্ভব প্রিয় ছিল বঙ্গবন্ধুর। এখানে থেকেই বঙ্গবন্ধু যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গড়ার কাজে সর্বশক্তি নিয়োগ করেছিলেন। সেদিন ঘাতকদের মেশিনগানের মুখেও বঙ্গবন্ধু ছিলেন অকুতোভয়। প্রশ্ন করেছিলেন, ‘তোরা কী চাস? কোথায় নিয়ে যাবি আমাকে?’

বঙ্গবন্ধু হীন সর্বত্রই আজ আঁধার। তিনি একক একজনই নেতা তিনি বাঙালি জাতির পিতা। আজও রাজপথ কাঁপে ঝাঁঝালো মিছিলে তারই নামে। আজও তারই আদর্শে জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে বেঁচে আছে বীরের বেশে। প্রয়াত বিশ্ব নেতাদের প্রথম সারিতে তারই স্থান। উচ্ছাস- উদ্দীপনা, উদ্বেগ-উৎকন্ঠায় আলোড়ন জাগানো বজ্রকন্ঠের জ্বালাময়ি সেই ভাষন আজও বাঙালি বুকে ধারন করে। বিশ্ববাসী স্বীকৃতি দিয়ে বাঙালি জাতিকে সম্মানের আসনে বসিয়েছে। শস্য শ্যমলিমায় সবুজ ঘাসের গালিচায় মাধুরী ছড়িয়ে এই বাংলাকে আলোর মুখ দেখিয়েছেন বাঙালি জাতির জনক। বঙ্গবন্ধু ছাড়া বাংলা আজ কান্ডারী শূন্য দিশেহারা।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি নাম, একটি ইতিহাস, একটি সংগ্রাম। তার জীবন ছিল সংগ্রামমুখর। সংগ্রামের মধ্যেই তিনি বড় হয়েছিলেন। বিশ্ববরেণ্য অবিসংবাদিত নেতা হয়েই তার জীবনাবসান হয়।

বাংলাদেশ ও বাঙালির সবচেয়ে হদয়বিদারক ও মর্মস্পর্শী শোকের দিন আজ। প্রতিবছর ১৫ আগস্ট আসে বাঙালির হৃদয়ে শোক আর কষ্টের দীর্ঘশ্বাস হয়ে। বাঙালি জাতি আজ গভীর শোক ও শ্রদ্ধায় তার শ্রেষ্ঠ সন্তানকে স্মরণ করবে। রাষ্ট্রীয়ভাবে যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যে আজ পালিত হবে জাতির পিতার শাহাদাতবার্ষিকী।
তাই আমি আমার কবিতায় সুর মিলিয়ে বলবঃ-

“ছায়া ঢাকা ভোর রোদেলা দুপুর,
কলতানে মুখরিত সন্ধ্যার নুপুর।
অনুভুতিময় আত্ম বিশ্বাসের চঞ্চল ছন্দে।
তোমার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত
কামনায়, বাংলাদেশে আমরা সকলে”

এই সংবাদ ৪১৭ বার পঠিত।
ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন