ভূমিমন্ত্রীর ছেলে তমাল যুবলীগ থেকে বহিষ্কার | আলোকিত প্রতিদিন

ভূমিমন্ত্রীর ছেলে তমাল যুবলীগ থেকে বহিষ্কার

Spread the love

দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর ছেলে ঈশ্বরদী উপজেলা যুবলীগ সভাপতি শিরহান শরীফ তমালকে দল থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। বুধবার রাতে (১৪ ডিসেম্বর) কেন্দ্রীয় যুবলীগ এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে বলে কেন্দ্রীয় যুবলীগের রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আবু মোহাম্মদ নাসিম পাভেল গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, কেন্দ্রীয় চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ গত এক বছরে শিরহান শরীফ তমালের নানা অপকর্মে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হওয়ায় এই সিদ্ধান্ত নেন। এর আগে আধিপত্য বিস্তার দলীয় গ্রুপিং ও নিজ দলের কর্মীদের উপর হামলা, বাড়িঘর ভাঙচুরের অভিযোগে ঈশ্বরদী উপজেলা কমিটি স্থগিত করা হয় এবং এই ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় দীর্ঘ ২ মাস কারাগার ভোগের পর জামিনে থাকাবস্থায় আবারো দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করায় তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার হয়।

এদিকে পাবনার ৪ সাংবাদিককে পিটিয়ে আহত করার মামলায় বুধবার (১৩ ডিসেম্বর) দুপুর ১টার দিকে তমালকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দিয়েছেন পাবনার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রেজাউল করিমের ১-নং আমলী আদালত। ওই দিন তমাল জামিন নিতে আদালতে হাজির হলে তার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে জেলহাজতে প্রেরণের এ নির্দেশ দেন আদালত।

প্রসঙ্গত, ২৯ নভেম্বর রুপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে প্রধানমন্ত্রীর আগমনের প্রস্তুতিমূলক খবর সংগ্রহে থাকা সাংবাদিকদের উপর ঈশ্বরদী উপজেলা যুবলীগের সভাপতি, ভূমিমন্ত্রীপুত্র শিরহান শরীফ তমাল ও সাধারণ সম্পাদক রাজিব সরকারের নেতৃত্বে স্থানীয় ৩০/৪০ জনের একদল ক্যাডার হামলা চালায়। এতে সময় টিভির প্রতিনিধি সৈকত আফরোজ আসাদ, এটিএন নিউজের রিজভী রাইসুল জয়, ডিবিসি নিউজের প্রতিনিধি পার্থ হাসান ও সময় টিভির ক্যামেরাপারসন মিলন হোসেন গুরুতরভাবে আহত হন। এ ঘটনায় ওই দিন রাতেই হামলার শিকার ডিবিসি নিউজের পাবনা প্রতিনিধি পার্থ হাসান বাদী হয়ে ঈশ্বরদী থানায় মামলা দায়ের করেন।

দীর্ঘ ১৫ দিন পলাতক থাকার পর বুধবার পাবনার আমলী আদালত- ১ এ হাজির হলে বিচারক রেজাউল করিম শিরহান শরীফ তমালের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠান।

এর আগে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নিজ দলের কর্মীদের উপর হামলা ও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ায় যুবলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের নির্দেশে এ চলতি বছরের ২৩ ফেব্রুয়ারি ঈশ্বরদী উপজেলা ও পৌর যুবলীগের সকল কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। কিন্তু, কমিটি স্থগিতের পরও বিন্দুমাত্র কমেনি উপজেলা যুবলীগের সন্ত্রাস ও নাশকতা। আধিপত্য বিস্তার নিয়ে নিজ দলের কর্মীদের হত্যা, হাত পায়ের রগকর্তন, হামলা, বাড়িঘর ভাঙচুর ছাড়াও মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজি, ভূমিদখল ও টেন্ডারবাজির অভিযোগ রয়েছে তমাল ও রাজীব বাহিনীর বিরুদ্ধে।

সূত্র: ডেইলি সান
আলোকিত প্রতিদিন/১৪ ডিসেম্বর/আরএইচ

এই সংবাদ ৪৯০ বার পঠিত।
ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন