গত এক দশকে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে | আলোকিত প্রতিদিন

গত এক দশকে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে

Spread the love

সংসদ প্রতিবেদক: গত এক দশকে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়ে বিশ্বে একটা স্থান অর্জন করে নিয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে সেভাবেই এগিয়ে নিয়ে যাবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাতে একাদশ জাতীয় সংসদের চতুর্থ অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী একথা জানান। এ সময় সংসদে সভাপতিত্ব করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের পর সংসদের অধিবেশন সমাপ্ত ঘোষণা করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গত এক দশকে বাংলাদেশ ঘুরে দাঁড়িয়েছে। স্বল্প সময়ে বিশ্বে একটা স্থান করে নিয়েছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশ এখন এশিয়ার ১৩তম অর্থনৈতিক উন্নতির দেশ এবং দক্ষিণ এশিয়ার দ্বিতীয় অর্থনৈতিক উন্নতির দেশ। বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৩০তম। আমরা আরও অর্জন করতে পারবো।

তিনি বলেন, এই সময়ে আমাদের চলার পথ কী খুব মসৃণ ছিলো? ছিলো না। আগুন দিয়ে জ্বালাও-পোড়াও করা হয়েছে। বিআরটিসি আর্টিকুলেট বাসগুলো পর্যন্ত জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিরোধী দল অত্যাচার নির্যাতনের কথা বলে। আমরা কম নির্যাতনের শিকার হইনি। আওয়ামী লীগ ছাড়া বর্তমান সংসদে যারা বিরোধী দল তারাও বিএনপি-জামায়াতের অত্যাচার নির্যাতনের শিকার। সেই তুলনায় আমরা কিছুই করছি না।

শেখ হাসিনা বলেন, যারা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চেয়েছিলো তাদের ষড়যন্ত্র এখনও চলছে। এই সব ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে। দেশকে যেভাবে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি, সেভাবে এগিয়ে নিয়ে যাবো।

‘বাংলাদেশের যখন উন্নতি হয়, অগ্রগতি হয়, দেশ যখন এগিয়ে যায় তখন দেশের কিছু মানুষ আছে তাদের পছন্দ হয় না। যারা সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে, যারা বিভিন্ন সময় বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানাতে চেয়েছিল তারা ষড়যন্ত্র করেই যাচ্ছে, করেই যাবে। এসব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি, এগিয়ে নিয়ে যাবো।’

সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ষড়যন্ত্রের ব্যাপারে সবাইকে সজাগ ও সতর্ক থাকতে হবে। প্রত্যেক সংসদ সদস্যদের প্রতি আমাদের অনুরোধ, প্রত্যেক এলাকায় সরকারের যে উন্নয়ন কাজগুলো চলছে, সেদিকে নজর রাখবেন।

‘প্রত্যেকটি উন্নয়ন কর্মকাণ্ড যাতে সুন্দর ও সুচারুরূপে সম্পন্ন হয়, সেদিকে নজর রাখবেন। এতে দেশের উন্নয়নটা আরও ত্বরান্বিত হবে। মনে রাখবেন নির্বাচনী এলাকায় ভোটারদের মঙ্গল করাই হচ্ছে প্রত্যেক জনপ্রতিনিধিদের অন্যতম দায়িত্ব। আশা করি, তারা সেই কাজটি করবেন।’

আলোকিত প্রতিদিন/১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯/এফএইচ

এই সংবাদ ৬২ বার পঠিত।
ফেসবুক থেকে মন্তব্য করুন